ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার রূপাপাত ইউনিয়নে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রোববার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে রাসেল শিকদার (২২) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহত ফারিয়া খানম (১১) বোয়ালমারী উপজেলার রূপাপাত ইউনিয়নের ইছাডাঙ্গা গ্রামের মুক্তার শিকদারের মেয়ে। তিনি স্থানীয় নড়াইল এম এ মান্নান উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। গ্রেপ্তার রাসেল একই গ্রামের মানোয়ার শিকদারের ছেলে।

পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রোববার সন্ধ্যার পর রাসেল শিকদার দোকানের পাওনা টাকা দেওয়ার কথা বলে ফারিয়াকে নিজ বাড়িতে ডেকে নেয়। দীর্ঘ সময় ফারিয়াকে না পেয়ে পরিবারের লোকজন খুঁজতে বের হয়। সন্দেহ হলে রাসেলকে আটক করে তার ঘর তল্লাশি করে তারা। এক পর্যায়ে তার ঘরের বাথরুম থেকে গলায় ওড়না জড়ানো এবং রশি দিয়ে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় ফারিয়াকে উদ্ধার করা হয়। পরে আলফাডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে ডহরনগর ফাঁড়ি পুলিশ রাসেলকে আটক করে তাদের হেফাজতে নেয়। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ফারিয়ার বাবা মো. মুক্তার শিকদার বলেন, রাসেল খুবই বাজে ছেলে। আমাদের দোকানের ১৫০ টাকা বাকি খেয়ে সেই টাকা আর পরিশোধ করেনি। রোববার সন্ধ্যায় আমার মেয়েকে টাকা দেওয়ার কথা বলে ঘরে ডেকে নেয়। পরে তার ঘরের বাথরুম থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় ফারিয়ার মরদেহ উদ্ধার করি।

ডহরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. মোক্তার হোসেন সমকালকে বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ফারিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। রাসেলকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

বোয়ালমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আব্দুল ওহাব বলেন, উদ্ধার করে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।