কুমিল্লার দেবিদ্বারে শোক দিবসের র‌্যালিতে তুচ্ছ ঘটনায় মহিলা আওয়ামী লীগ ও যুব মহিলা লীগের নেত্রীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে এ ঘটনা ঘটে। হাতাহাতির একটি ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।

ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা গেছে, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে দেবিদ্বার উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত শোক দিবসের র‌্যালির পেছন দিকে তুচ্ছ ঘটনায় উপজেলা যুব মহিলা লীগ নেত্রী লিলি বেগমকে কিলঘুসি ও চড়থাপ্পর মারছেন অপর একটি গ্রুপের মিনা আক্তার, রোজিনা আক্তার, নিলুফা বেগমসহ কয়েকজন নেত্রী। পুলিশ, আনসার সদস্যসহ উপস্থিত নেতৃবৃন্দ ওই নেত্রীদের থামানোর চেষ্টা করছেন। পরে কুমিল্লা উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শিরিন সুলতানা মিনা আক্তারকে সরিয়ে নিয়ে যান।

এ বিষয়ে যুব মহিলা লীগের নেত্রী সুমি আক্তার বলেন, কুমিল্লা উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শিরিন সুলতানার কয়েকজন কর্মী উপজেলা যুব মহিলা লীগের সদস্য লিলি বেগমকে প্রথমে ধাক্কা দেন। পরে অকথ্য ভাষায় গালাগাল ও চুল টেনে ধরে কিলঘুসি এবং মারধর করেন।

এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শিরিন সুলতানা বলেন, তাঁর এক কর্মীর সঙ্গে উপজেলা চেয়ারম্যানের সঙ্গে আসা এক কর্মীর বাগবিতণ্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। পরে তিনি তাঁর কর্মীদের সরিয়ে নিয়ে আসেন।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শিরিন সুলতানা ঘটনার সময় পাশেই ছিলেন। কী নিয়ে এ মারামারি ও হাতাহাতি তিনি ভালো বলতে পারবেন। তিনি শোক মিছিলের সামনে ছিলেন বলে জানান।

দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কমল কৃষ্ণ ধর বলেন, এ বিষয়ে এখনও কোনো পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।