জমি সংক্রান্ত বিরোধে রাজশাহীর চারঘাটে বাবার হাসুয়ার কোপে ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন (৪৫) নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় নিহতের বাবা আব্দুল কুদ্দুসকে আটক করেছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলার সরদহ ইউনিয়নের হুজারপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহত জাহাঙ্গীর হোসেন ঝিকরা গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের বড় ছেলে। চারঘাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, নিহত জাহাঙ্গীর হোসেনরা দুই ভাই। তার বাবা আব্দুল কুদ্দুস প্রথম স্ত্রী মারা যাবার পর আবার বিয়ে করেছেন। সেই পক্ষের দুই মেয়ে রয়েছে। কয়েক মাস পূর্বে কুদ্দুস আলী দুই মেয়ের নামে জমি রেজিস্ট্রি করে দিয়েছেন। এর জের ধরে পারিবারিক কলহ চলছিল। মঙ্গলবার সকালে জাহাঙ্গীর হোসেন হুজারপাড়া বিলের জমিতে পাট কাটতে যান। এ সময় আব্দুল কুদ্দুস এবং তার দুই মেয়েজামাই শনির আলী ও মনির আলী পাট কাটতে নিষেধ করেন। তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে তিনজন মিলে জাহাঙ্গীর হোসেনকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। স্থানীয়রা উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। 

নিহতের ভাই রাজীব আলী বলেন, জমিতে আমরা দুই ভাই পাটের আবাদ করেছি। পাট কাটতে গেলে আমার বাবা তার দুই মেয়েজামাইকে সাথে নিয়ে বাধা দেন। এ সময় প্রথমে আমার বাবা হাঁসুয়া দিয়ে আমার ভাইয়ের মাথায় কোপ দেন। তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়লে অন্যরাও কোপানো শুরু করেন। হাসপাতালে নেওয়ার পথে ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে।  

এ বিষয়ে চারঘাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ বলেন, জমির বিরোধে জাহাঙ্গীর হোসনে খুন হয়েছেন। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রামেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত নিহতের বাবা আব্দুল কুদ্দুসকে আটক করা হয়েছে।