রাজধানী ঢাকার উত্তরায় গার্ডার দুর্ঘটনায় নিহত ৪ জনের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।  

মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে জানাজা শেষে ঝর্না বেগম ও তার শিশু সন্তান জাকারিয়া ও জান্নাতের মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। আর রাত সাড়ে ১১টার দিকে ইসলামপুর উপজেলার লাউদত্ত গ্রামে জানাজা শেষে নিজ বাড়ির আঙ্গিনায় দাফন করা হয় নববধূর মা ফাহিমা বেগমের মরদেহ। 

এদিন রাতে ঝর্না বেগম ও তার শিশু সন্তান জাকারিয়া ও জান্নাতের মরদেহ বহনকারী গাড়িটি জামালপুরের মেলান্দহে পৌঁছালে সেখানে হৃদয় বিদারক পরিবেশের অবতারণা হয়। আহাজারি করতে থাকেন স্বজনরা।

সোমবার বিকেলে বিয়ের অনুষ্ঠান শেষে উত্তরায় গার্ডার দুর্ঘটনায় নিহত হন পাঁচজন। এর মধ্যে ঝর্না বেগম, তার সন্তান জাকারিয়া এবং জান্নাতের গ্রামের বাড়ি জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার আগ পয়লা গ্রামে। আর ঝর্না বেগমের বড় বোন ফাহিমার বাড়ি ইসলামপুর উপজেলার লাউদত্ত গ্রামে। দুর্ঘটনায় সৌভাগ্যক্রমে প্রাণে বেঁচে যাওয়া নব দম্পতি হৃদয় হাসান ও রিয়া মনি গুরুতর আহতবস্থায় ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।