কুমিল্লায় অস্ত্র হাতে আওয়ামী লীগের এক পক্ষের মহড়ার ভিডিও এবং ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। রোববার দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত এ অস্ত্র প্রদর্শন চলে। এরই মধ্যে র‌্যাব ও পুলিশ অস্ত্রধারীদের আটক করতে অভিযান শুরু করেছে।

জানা যায়, আদর্শ সদর উপজেলার দক্ষিণ দুর্গাপুর ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য ফখরুল ইসলাম রুবেলের অনুসারীরা ২ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য আবদুল হান্নান সোহেলের অনুসারীদের ওপর হামলা চালায়। আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ববিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটে।

হামলার সময় গুলিবর্ষণ, মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেওয়াসহ বেশ কয়েকটি বাসাবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর চালানো হয়। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে রুবেলসহ অন্তত তিনজনের হাতে আগ্নেয়াস্ত্র দেখা গেছে। সোমবারও তারা মহড়া দিয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি সদস্য রুবেল দাবি করেন, টাউন হলের সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে আসার পথে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশারের ওপর হামলা চালান ইউপি মেম্বার সোহেল ও তাঁর লোকজন। পরে বিক্ষুব্ধ কর্মীরা মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেন। কেউ অস্ত্রের মহড়া দেননি।

আদর্শ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম জুয়েল বলেন, দুই মেম্বারই আমাদের অনুসারী। কী কারণে তাঁরা হামলা-সংঘর্ষে জড়িয়েছেন, তা বিস্তারিত জেনে বক্তব্য দিতে হবে।

ঘটনাস্থল ধর্মপুর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, পুলিশ টহল দিচ্ছে। বেশ কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ হানিফ সরকার সমকালকে বলেন, এলাকায় পুলিশ মোতায়েন আছে। অস্ত্রধারীদের শনাক্ত করে আটকের চেষ্টা চলছে।

র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ কুমিল্লার অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অস্ত্র নিয়ে মহড়ার কিছু ছবি ও ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। জড়িতদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।