ছয় বছর আগে শবে বরাতের দিন মাংস রান্না করা নিয়ে ঝগড়ার জেরে পুত্রবধূকে গলা টিপে হত্যা করেন ইয়াকুব নবী। এরপর স্ত্রীকে নিয়ে আত্মগোপনে চলে যান তিনি। ছয় বছর তাকে খুঁজে পায়নি পুলিশ। অবশেষে গত সোমবার রাতে হাটহাজারী উপজেলার চৌধুরীহাট এলাকা থেকে তাকে ও তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই। 

গ্রেপ্তার ইয়াকুব নবী (৬৭) ও তার স্ত্রী খদিজা বেগম (৫৭) চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার কাথারিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা। 

পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার পরিদর্শক নেজাম উদ্দিন জানান, ২০১৬ সালের ২২ মে শবে বরাতের দিন ঘরে মাংস রান্না করা নিয়ে পুত্রবধূ রুবি আক্তারের সঙ্গে শ্বশুর ইয়াকুব নবীর ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে রুবির গলা টিপে ধরলে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়। হত্যাকাণ্ডের ঘটনা আড়াল করতে রুবির গলায় ওড়না পেঁচিয়ে লাশ ঘরের চালের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখেন। এ ঘটনায় রুবির পরিবার মামলা করলে স্ত্রী খদিজাকে নিয়ে বাঁশখালী থেকে পালিয়ে যান ইয়াকুব। হাটহাজারীর চৌধুরীহাট এলাকায় আত্মগোপন করে থাকেন। পিবিআই মামলাটির তদন্তভার পাওয়ার পর ইয়াকুবের অবস্থান শনাক্ত করে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।