দেশে ব্যাপক সমালোচিত বালিশকাণ্ডে রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্প সরাসরি জড়িত নয় বলে মন্তব্য করেছেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। 

তিনি বলেছেন, প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য রুশ প্রকৌশলী ও কর্মকর্তাদের চাহিদা অনুযায়ী মান বজায় রেখে সিভিল স্ট্রাকচার, ফার্নিচারসহ সবকিছু কিনেছিল গণপূর্ত মন্ত্রণালয়। এ কারণে ওই ঘটনায় প্রকল্পের কোনো সম্পর্ক নেই। 

মঙ্গলবার বিদ্যুৎকেন্দ্রটির নির্মাণকাজের অগ্রগতি পরিদর্শন শেষে তিনি এ মন্তব্য করেন।

দুই দিনব্যাপী প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন শেষে গ্রিন সিটি মিলনায়তনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন একাদশ জাতীয় সংসদের অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি আবদুস শহীদ এমপিসহ কমিটির সদস্যরা।

প্রকল্প পরিচালক (পিডি) ড. শৌকত আকবর বলেন, প্রথম ইউনিটের কাজ ৪৯ দশমিক ৬৫ শতাংশ শেষ হয়েছে। ভৌত সিভিল কনস্ট্রাকশনের কাজ প্রায় ৮০ শতাংশ শেষ হয়েছে। আশা করছি, ২০২৩ সালের মধ্যে বিদ্যুৎকেন্দ্রটি চালু করা যাবে।

প্রকল্পে ৫৮ টেকনিশিয়ানের যোগদান

রূপপুর পারমাণবিক নিউক্লিয়ার পাওয়ার কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেডে ৫৮ জন সিনিয়র ও সহকারী টেকনিশিয়ান যোগ দিয়েছেন। সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদান করেন তারা।