প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী শশীভূষণ পালের প্রতিষ্ঠিত দেশের প্রথম অঙ্কনশিল্প শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি সংরক্ষণের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টায় জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে এই স্মারকলিপি দেয় খুলনার নাগরিক সংগঠন জনউদ্যোগ ও গুণীজন স্মৃতি পরিষদ।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, খুলনা শহরের মহশ্বেরপাশায় ১৯০৪ সালে শিল্পী শশীভূষণ পাল 'মহেশ্বরপাশা স্কুল অব আর্ট' প্রতিষ্ঠা করেন। নিজ জমিতে গড়ে তোলা এই প্রতিষ্ঠান পূর্ববঙ্গের প্রথম প্রাতিষ্ঠানিক চারুকলা শিক্ষাকেন্দ্র। নতুন অবকাঠামো নির্মাণের জন্য শতবর্ষী এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পুরোনো ভবন ভেঙে ফেলতে গত বছরের ২১ ডিসেম্বর দরপত্র আহ্বান করা হয়।

পরবর্তীকালে নাগরিকদের আন্দোলনের মুখে তা স্থগিত করা হয়। ওই সময় খুলনার রাজনৈতিক নেতা ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা অঙ্গীকার করেছিলেন, মহেশ্বরপাশা আর্ট স্কুলের শতবর্ষী ভবনটি রক্ষা করে সব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন করা হবে। কিন্তু উন্নয়ন কর্মযজ্ঞে ভবনটির একাংশ ভেঙে গেছে। তবে ভবনটি রক্ষার কোনো উদ্যোগই নেওয়া হচ্ছে না।

স্মারকলিপিতে ইতিহাস-ঐতিহ্যের ধারক ভবনটি রক্ষা করে নতুন অবকাঠামো নির্মাণ করা এবং ভবনটিকে আর্ট গ্যালারি হিসেবে গড়ে তোলার দাবি জানানো হয়।

স্মারকলিপি দেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন গুণীজন স্মৃতি পরিষদের উপদেষ্টা সাংবাদিক গৌরাঙ্গ নন্দী, সভাপতি শামীমা সুলতানা শীলু, নজরুল একাডেমির সাধারণ সম্পাদক মাসুদ মাহমুদ, খুলনা উন্নয়ন ফোরামের কো-চেয়ারম্যান ডা. সৈয়দ মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু, খুলনা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি শেখ মফিদুল ইসলাম, দেলোয়ার উদ্দিন দিলু, মহেন্দ্রনাথ সেন প্রমুখ।