গোপালগঞ্জে অপচিকিৎসায় মো. নূর ইসলাম নামে নয় বছ বয়সী এক প্রতিবন্ধী শিশুর মৃত্যু ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ভণ্ড নারী কবিরাজ মোসা. আকলিমা বেগমকে (৩৯) আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন বিচারক।

রোববার দুপুরে গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আব্বাস উদ্দীন এ রায় দেন।

সাজাপ্রাপ্ত মোসা. আকলিমা খাতুন মুকসুদপুর উপজেলার নিশ্চিন্তপুর গ্রামের লতিপ শেখের স্ত্রী। তিনি এলাকায় ভণ্ড কবিরাজ হিসেবে পরিচিত ছিলেন ও অপচিকিৎসার মাধ্যমে মানুষের সাথে প্রতারণা করে টাকা আদায় করতেন। রায় ঘোষণার সময় তিনি পলাতক ছিলেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, মুকসুদপুর উপজেলার কানুড়িয়া গ্রামের মৃত কছিম উদ্দিনের ছেলে মো. নূর ইসলাম জন্মগত প্রতিবন্ধী ছিল। ২০০৭ সালের ৯ মার্চ সকালে ওই শিশুকে চিকিৎসার জন্য কবিরাজ মোসা. আকলিমা বেগমের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে জিনে ধরেছে এমন কথা বলে কবিরাজ তার বাড়ির পাশের কুমার নদীতে চুবিয়ে ও মাথায় আঘাত দিয়ে ওই শিশুকে হত্যা করে। খবর পেয়ে পুলিশ ওই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় মুকসুদপুর থানার সিন্দিয়াঘাট নৌ পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই মো. মনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে ওই দিন মুকসদুপুর থানায় কবিরাজের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

দীর্ঘ তদন্ত শেষে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও মুকসুদপুর থানার এসআই মো. ওমর ফারুারুক ২০০৭ সালের ১৫ মে কবিরাজ মোসা. আকলিমা বেগমের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। স্বাক্ষ্যপ্রমাণ গ্রহণ শেষে বিজ্ঞ বিচারক কবিরাজ মোসা. আকলিমা বেগমকে অভিযুক্ত করে এ রায় দেন।