আসন্ন জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত ৫০টি আসনে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগ থেকে দুই আদিবাসীকে মনোনয়ন এবং আদিবাসীদের ওপর সহিংসতা ও হামলায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন আদিবাসীরা।

রোববার সকাল ১১টায় দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সামনে আদিবাসী নারী পরিষদ ও বাংলাদেশ আদিবাসী নারী নেটওয়ার্ক যৌথভাবে এ কর্মসূচির আয়োজন করে। 

এ সময় বক্তব্য দেন আদিবাসী নারী পরিষদ জেলা শাখার সহসভাপতি মিনতী মার্ডি, কোষাধ্যক্ষ শিবানী উরাও, সদস্য সেলিনা সরেন, মায়ারানী টপ্য, বাণী কুজুর, মিনতী লাকড়া, কমলা সরেন, সুশিলা মুর্মু, স্মৃতি মার্ডি, হাসিনা সরেন প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, সমতল তথা উত্তরবঙ্গের রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের আদিবাসী নারীরা সব ক্ষেত্রে পিছিয়ে আছেন। তাঁদের প্রতি নানা ধরনের সহিংসতা, নিপীড়ন ও নির্যাতনের মতো ঘটনা অহরহই ঘটছে। অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিকভাবে প্রান্তিক বলে তাঁদের প্রতি এ সহিংসতার ঘটনা বেশি। রংপুর জেলার বদরগঞ্জের আদিবাসী শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের পর হত্যা, দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে আদিবাসী কলেজছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ, বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী সাঁওতাল কিশোরীকে ধর্ষণ, পার্বতীপুরে সাঁওতাল কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টার মতো ঘটনা ঘটছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বিচার প্রক্রিয়ার দীর্ঘসূত্রিতার জন্য সুবিচার পাওয়া যায় না।

বক্তারা আরও বলেন, আদিবাসী নারীরা ক্ষমতার কাঠামোর একেবারে বাইরে রয়েছেন। অথচ তাঁদের মধ্যেও নেতৃত্বের সক্ষমতা তৈরি হয়েছে। সরকার নারীদের ক্ষমতায়নের জন্য নানা পরিকল্পনা ও সুযোগ তৈরি করলেও সেখানে আদিবাসীদের প্রবেশাধিকার নেই। জাতীয় সংসদে নারীদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিতের জন্য ৫০টি সংরক্ষিত আসন থাকলেও রংপুর ও রাজশাহী বিভাগ থেকে কোনো আদিবাসী নারীকে কখনও মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। আগামী সংসদ নির্বাচনে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগ থেকে দু'জন আদিবাসী নারীকে সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন দেওয়ার জোর দাবি জানান বক্তারা।