কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ হাফিজ চ্যালেঞ্জের বিরুদ্ধে অনৈতিক প্রস্তাব দেওয়া ও শ্নীলতাহানির চেষ্টার অভিযোগ করেছেন একই শাখার এক সহসম্পাদক। থানায় লিখিত অভিযোগে ওই নেত্রী তাঁকে হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন।

ওই নেত্রীর অভিযোগ, ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদকের অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তাঁর ব্যক্তিগত কিছু ছবি ফেক আইডি খুলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে শেখ হাফিজ এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। অভিযোগপত্রে আরও তিন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করেছেন ওই নেত্রী।

গতকাল সোমবার দুপুরে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন ওই নেত্রী। এতে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও জেলা ছাত্রলীগের সহসম্পাদক ফারদিন সৃষ্টি, জেলা ছাত্রলীগের সদস্য হৃদয় ও মোহাইমিনুল মিরাজের নামও উল্লেখ করা হয়েছে।প

লিখিত অভিযোগে ওই নেত্রী উল্লেখ করেন, শেখ হাফিজের সঙ্গে দীর্ঘদিন রাজনীতি করেছেন তিনি। এক পর্যায়ে তিনি তাঁকে অনৈতিক প্রস্তাব দেন এবং শ্নীলতাহানির চেষ্টা করেন। এর পর থেকে তিনি দূরত্ব বজায় রেখে চলতে শুরু করলে হাফিজসহ অন্য আসামিরা তাঁকে রাস্তাঘাটে আজেবাজে কথাবার্তা বলতে শুরু করেন। তাঁরা 'আখি খাতুন' নামে একটি ফেক আইডি খুলে তাঁর ছবি এবং তাঁকে নিয়ে আজেবাজে কথাবার্তা পোস্ট করেন। তিনি তাঁদের এ ধরনের কার্যকলাপ করতে নিষেধ করলে তাঁকে প্রাণনাশের হুমকি দেন। আসামিরা যে কোনো সময় তাঁর বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে উল্লেখ করে ওসির কাছে আইনগত সহায়তা চান ওই তরুণী।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে শেখ হাফিজ বলেন, এ ধরনের অভিযোগের বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। সব মিথ্যা। কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিক বলেন, এ বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।