বিচার না পেলে আত্মহত্যার হুমকি দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক নওরীন রহমান। বুধবার সকাল ১১টার দিকে শহরের বড় বাজার এলাকার প্রীতম হোটেলের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ হুমকি দেন তিনি। এ সময় তিনি কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ হাফিজ চ্যালেঞ্জসহ দোষীদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানান তিনি। 

থানায় অভিযোগ দেওয়ার দুই দিন পার হয়ে গেলেও অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার না করায় সংবাদ সম্মেলনে তিনি ক্ষোভ ও হতাশা প্রকাশ করেন। এছাড়া তাকে নানাভাবে হুমকি-ধামকি দেওয়া হচ্ছে বলে এ সময় অভিযোগ করেন নওরীন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘আমার জীবন আজ বিপন্নের পথে। শুধুমাত্র ছাত্রলীগকে ভালোবেসে এবং ছাত্রলীগের রাজনীতি করতে গিয়ে আমি নানাভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছি। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আদর্শ, বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাফিজ শেখ চ্যালেঞ্জের হাত ধরে ছাত্রলীগে যোগ দেই। এরপর থেকেই বিভিন্ন সময় তার বাসায় আমাকে ডাকা হতো। একপর্যায়ে আমাকে বিভিন্ন ধরনের কুপ্রস্তাব দিলে তা এড়িয়ে যাই। এর কিছুদিন পর পারিবারিক একটি ছবি তিনি হাতে পান। বাসায় ডেকে ওই ছবি দেখিয়ে আমাকে ব্ল্যাকমেইল করে কুপ্রস্তাব দেন। রাজি না হলে ওই ছবি ভাইরাল করে দেওয়ার ভয় দেখান।’

নওরীন বলেন, ‘এরপর তিনি আমার আরও কিছু ছবি এডিট করে সেই ছবি দিয়ে ফেসবুকে ভুয়া আইডি খুলে বাজেভাবে প্রচার শুরু করেন। চ্যালেঞ্জের সহযোগীরা আজেবাজে কথাবার্তাসহ আমাকে নানাভাবে হুমকি দেন। মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় আমি কোনো উপায় না পেয়ে ১৯ সেপ্টেম্বর কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি অভিযোগ দেই। কিন্তু অভিযোগ জমা দেওয়ার তিন দিন পার হলেও পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। উল্টো চ্যালেঞ্জসহ তার সহযোগীরা আমাকে নানাভাবে হুমকি দিচ্ছেন। এমনকি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও আমার নামে আজেবাজে কথা লিখে পোস্ট করা হচ্ছে। পুলিশকে বিষয়টি বারবার জানালেও তারা কোনো  ব্যাবস্থা নেয়নি।’

তিনি বলেন, ‘বিষয়টি আমি জেলা নেতাদের জানিয়েছি, তারা এর কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি আমি। কোনো ধরনের প্রতিকার না পেলে আত্মহত্যা করা ছাড়া কোনো উপায় থাকবে না। আমি যদি আত্মহত্যা করি, তার জন্য পুলিশ, প্রশাসন, জেলার নেতারা সবাই দায়ী থাকবেন।’

সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে নওরীন বলেন, ‘আমার জীবন নষ্ট করে দিয়েছেন চ্যালেঞ্জ। আমি আপনাদের কাছে সহযোগিতা চাই। স্বাভাবিকভাবে জীবন-যাপন করতে চাই আমি।’ এ সময় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আইজিপিসহ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

প্রসঙ্গত, নওরীন এর আগে গত ১৯ সেপ্টেম্বর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ হাফিজ চ্যালেঞ্জসহ চার জনের বিরুদ্ধে  কুষ্টিয়া মডেল থানায় অভিযোগ জমা দেন। ২০ সেপ্টেম্বর জেলা ছাত্রলীগের ৬ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে থানায় এজাহার জমা দেন।

এদিকে নওরীনের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছে জেলা ছাত্রলীগ। কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সকাল সাড়ে ১১টায় সংবাদ সম্মেলন করে তারা। সেখানে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিক ও সাধারণ সম্পাদক শেখ হাফিজ চ্যালেঞ্জ উপস্থিত ছিলেন। এ সময় তারা ওই নারী নেত্রীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে ধরেন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের অশোভন কাজের প্রমাণ আছে বলেও দাবি করেন তারা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি দেলোয়ার রহমান বলেন, তরুণীর দেওয়া একটি মামলা এজাহার হিসেবে নেওয়া হয়েছে। সেটি থানায় রেকর্ড করে সাইবার ক্রাইম ইউনিটকে দেওয়া হয়েছে। তারা তদন্ত করে আসামিদের গ্রেপ্তার করবে। এখন পর্যন্ত কেউ গ্রেপ্তার হয়নি বলেও  জানান তিনি।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী বলেন, ভুল বোঝাবুঝির ফলে এটা  হতে পারে। তাঁরা বিষয়টি দেখছেন। কেউ যদি দোষ করে; সংগঠন থেকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।