গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেমুরবিপ্রবি) আন্দোলনরতদের দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেওয়ার পর প্রশাসনিক ভবনের তালা খুলে দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার বিকেলে উপাচার্য (ভিসি) ড. একিউএম মাহবুবের উপস্থিতিতে শিক্ষার্থীরা তালা খুলে দেন। এর আগে গত মঙ্গলবার পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছিলেন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

এ ব্যাপারে অধ্যাপক ড. একিউএম মাহবুব বলেন, আগামী সোমবার তাদের শ্রেণিকক্ষ বরাদ্দ দেওয়া হবে। এই আশ্বাস দেওয়ার পর শিক্ষার্থীরা প্রশাসনিক ভবনের তালা খুলে দিয়েছে। দ্রুতই সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শ্রেণিকক্ষ সমস্যার সমাধান করা হবে।

বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী শফিকুর রহমান বলেন, চার ব্যাচ মিলিয়ে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২৫০। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমাদের জন্য মাত্র একটি শ্রেণিকক্ষ বরাদ্দ। ফলে আমরা নিয়মিত পাঠ গ্রহণসহ ল্যাব ক্লাস থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। একটি কক্ষে আমরা চার ব্যাচের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত ক্লাস করতে পারি না। এ কারণে সেশনজটসহ অন্যান্য বিভাগ থেকে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে গত দুই মাস ধরে শ্রেণিকক্ষের জন্য আবেদন করলেও প্রশাসন এ ব্যাপারে ভ্রুক্ষেপ করছিল না। তাই আমরা আন্দোলনে যেতে বাধ্য হয়েছি।

শ্রেণিকক্ষের সমস্যা নিয়ে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বর্তমান সভাপতি (সাময়িক দায়িত্বপ্রাপ্ত) ইব্রাহিম শেখ বলেন, শ্রেণিকক্ষের সমস্যা নিয়ে আমরা ভিসির সঙ্গে একাধিকবার আলোচনা করেছি। কিন্তু সেটির কোনো সুরাহা হয়নি। শ্রেণিকক্ষের অভাবে একটি ব্যাচের ক্লাস নিলে আরেকটি ব্যাচ ক্লাস করতে পারে না। এতে শিক্ষার্থীরা সেশনজটে পড়ছে। এটি উপলব্ধি করে শিক্ষার্থীরা নিজেদের দাবি আদায় করে নিতে উদ্যোগী হয়েছে।