সিলেটে পরিবহন নেতাদের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছে শ্রমিকরা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হঠাৎ সিলেটের প্রবেশদ্বার দক্ষিণ সুরমার হুমায়ুন রশিদ চত্বরে, চন্ডিপুল, উপশহরের মুখসহ বিভিন্ন মোড়ে অবস্থান নিয়ে সড়ক অবরোধ করে। ফলে যানজটের কবলে পড়ে নগরীর বিভিন্ন এলাকা। শ্রমিক সংগঠনের মধ্যে পাল্টাপাল্টি মামলার জেরে শ্রমিকরা মাঠে নামেন বলে জানা গেছে।

গত ৮ সেপ্টেম্বর পরিবহন শ্রমিকদের ধর্মঘট কর্মসূচি চলাকালে মানববন্ধনে বাঁধা ও সংগঠন বিরোধী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মইনুল হোসেন বাদী হয়ে শ্রমিকলীগ নেতাসহ কিছু শ্রমিকদের বিরুদ্ধে দক্ষিণ সুরমা থানায় মামলা করেন। মঙ্গলবার মইনুল ইসলামকে প্রধান আসামি করে ২শ জনের বিরুদ্ধে পাল্টা মামলা করেন শ্রমিক লীগের এক নেতা। মামলার আসামির মধ্যে সিএনজি অটোরিকশা মালিক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ জাকারিয়াও রয়েছেন। মামলায় ধর্মঘট চলাকালে অ্যাম্বুলেন্স আটকিয়ে রোগীর অক্সিজেন খুলে ফেলা, মারধর ও টাকা লুটের অভিযোগ আনা হয়।

মামলা দায়েরের তিনদিন পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে দেখা করে তা প্রত্যাহার দাবি জানান জেলা পরিবহন নেতারা। কিন্তু কমিশনারের কাছে আশ্বাস না পেয়ে রাস্তায় নেমে পড়েন তারা। সন্ধ্যায় সিএনজিসহ সব ধরনের পরিবহন শ্রমিকরা কর্মবিরতির ডাক দিয়ে রাস্তায় অবস্থান নেন। সিলেটের প্রবেশদ্বারসহ নগরী ও এর আশপাশ এলাকার রাস্তায় অবস্থান নেওয়ার কারণে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। 

এ বিষয়ে দক্ষিণ সুরমা থানার ওসি কামরুল হাসান তালুকদার জানিয়েছেন, উভয় পক্ষের দুটি মামলা হয়েছে। জেলা পরিবহন ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা নেতাদের বিরুদ্ধে কেন মামলা হলো সেজন্য শ্রমিকরা রাস্তায় নেমেছে। কারা শ্রমিক আর কারা পাবলিক তা বোঝা মুশকিল। চেষ্টা চলছে সড়ক যানজট মুক্ত রাখার।