স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার অভিযোগপত্রভুক্ত আসামি সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের করা মামলার আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আদালত। হেফাজতে নিয়ে নির্যাতনের অভিযোগে মামলার তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক বনজ কুমার মজুমদারসহ ৬ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তিনি মামলার এই আবেদন করেছিলেন।

আজ রোববার চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ ড. বেগম জেবুননেছার আদালত এই আবেদন খারিজ করে আদেশ প্রদান করেন। 

একই সঙ্গে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য ফেনী কারাগারের জেল সুপারকে নির্দেশ দিতে যে আবেদন করেছিলেন বাবুল আক্তার, তাও নামঞ্জুর করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষের চট্টগ্রাম মহানগর পিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মো. ফখরুদ্দিন চৌধুরী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

বাবুল আক্তার নির্যাতনের অভিযোগে যাদের বিরুদ্ধে মামলা করার আবেদন করেছিলেন তারা হলেন- পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার, পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান, পিবিআই মেট্রোর পুলিশ সুপার নাইমা সুলতানা, পিবিআই তৎকালীন পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা, পরিদর্শক এ কে এম মহিউদ্দিন সেলিম ও পরিদর্শক কাজী এনায়েত কবির।

গত ১৩ সেপ্টেম্বর মিতু হত্যা মামলায় বাবুল আক্তারসহ ৭ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে পিবিআই। ১০ অক্টোবর মামলার শুনানির তারিখ ধার্য রয়েছে।

২০১৬ সালের ৫ জুন জিইসি মোড় এলাকায় খুন হন মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনায় ওই বছরের ৬ জুন জঙ্গিরা জড়িত দাবি করে স্বামী বাবুল আকতার পাঁচলাইশ থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে আদালতের নির্দেশে মামলা তদন্ত শুরু করে পিবিআই। ২০২১ সালের ১১ মে বাবুল আক্তারকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পিবিআই। বাবুল বর্তমানে ফেনী জেলা কারাগারে বন্দি রয়েছেন।