সাম্প্রদায়িক সহিংসতা রুখতে শারদীয় দুর্গোৎসবের আগে নগরের ৪১ ওয়ার্ডে সম্প্রীতি সমাবেশ করবে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। 

সোমবার নগরের থিয়েটার ইনস্টিটিউটে দুর্গোৎসব উপলক্ষে অনুদান প্রদান অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আফরোজা কালাম। এ সময় ২৮৭টি পূজামণ্ডপে জেনারেটরের জ্বালানী তেলের অনুদান বাবদ পাঁচ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, কাউন্সিলরদের নেতৃত্বে সিটি করপোরেশনের ৪১ ওয়ার্ডে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির উদ্যোগে প্রতিটি ওয়ার্ডে সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। সমাবেশে ধর্মীয় উগ্রবাদ, জঙ্গিবাদ, সহিংসতা ও সন্ত্রাসবাদকে প্রতিহত করার কথা তুলে ধরা হবে। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের অপব্যবহার রোধে সচেতন হওয়ার বার্তা তুলে ধরা হবে। সব ধর্মীয় উৎসব যথাযথ ভাবগাম্ভীর্য ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মাধ্যমে উদযাপনের বার্তা ছড়িয়ে দেওয়া হবে। প্রচার করা হবে প্রত্যেক ধর্মের শান্তি ও সৌহার্দ্যরে বাণী।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আফরোজা কালাম বলেন, বাংলাদেশ একটি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ, বহুকাল ধরে সব ধর্মের মানুষ এঅঞ্চলে সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্বময় পরিবেশে বসবাস করে আসছে। বাংলাদেশ সাংবিধানিকভাবে অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র। তবুও স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুরা নিজেদের পরাজয়ের গ্লানির প্রতিশোধ নিতে বার বার সাম্প্রাদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গোৎসবসহ নানা ধরণের অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠি নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এ জন্য ৪১ ওয়ার্ডে সম্প্রীতি সমাবেশ করা হবে। সম্প্রীতি সমাবেশ সফল করে চট্টগ্রাম যে অসাম্প্রদায়িক নগরী তা আমরা প্রমান করতে চাই।’

 চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহীদুল আলমের সভাপতিত্বে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ঝুলন কুমার দাশের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর জহর লাল হাজারী, হাসান মুরাদ বিপ্লব, পুলক খাস্তগীর, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নীলু নাগ, রুমকী সেনগুপ্ত ও মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি আশীষ ভট্টচার্য্য প্রমুখ।