সোনালী ব্যাংকের ১০ কোটি টাকার ঋণখেলাপি মামলায় বন্ধক থাকলেও চট্টগ্রামের রিয়াজউদ্দিন বাজারের আলম মার্কেট ছিল অবৈধ দখলদারের কবলে। অবশেষে আদালতের নির্দেশে অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ করে আলম মার্কেট দখলে নিলেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি)। এর আগে চট্টগ্রাম অর্থঋণ আদালতের বিচারক মুজাহিদুর রহমানের আদালত এক আদেশে বন্ধকী এ সম্পদের দেখভাল করার জন্য ডিসিকে রিসিভার নিয়োগ করেন। একইসঙ্গে ওই মার্কেট থেকে অবৈধ দখলদার গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীকে উচ্ছেদ করতে নির্দেশ দেন আদালত।

সোমবার চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার হিমাদ্রী খিসার নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে মার্কেটটির দখল বুঝে নেওয়া হয়।

সোনালী ব্যাংক চট্টগ্রামের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) আলী আশরাফ আবু তাহের সমকালকে বলেন, ফেইম লেদার লিমিটেড গং সোনালী ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার সময় আলম মার্কেটসহ জমি বন্ধক রাখেন। পরে তারা খেলাপি হয়ে যান। এখন আদালত বন্ধকী সম্পদ আলম মাকের্টের দখল নিতে এবং তা পরিচালনার জন্য জেলা প্রশাসক, চট্টগ্রামকে রিসিভার নিয়োগ করেন। আজ সোমবার ডিসির পক্ষে সহকারী কমিশনার ও আমরা উপস্থিত থেকে আলম মার্কেট দখলে নিয়েছি। অবৈধ দখলদারকে উচ্ছেদ করা হয়েছে।

এর আগে গত ৮ সেপ্টেম্বর আদালত আদেশে উল্লেখ করেন, ২০০৪ সালের ২৫ মার্চ সোনালী ব্যাংক নগরীর পাঁচলাইশ শাখার দায়ের করা অর্থঋণ মামলার (নম্বর ২০২/২০০৩) ডিক্রি কার্যকর করার উদ্দেশ্যে ২০০৪ সালোর ৭ জুন একটি জারি মামলা হয়। ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর মার্কেটের সম্পত্তি নিলামে বিক্রয়ের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। কিন্তু কেউ এতে অংশ না নেওয়ায় নিলাম কার্যক্রম ব্যর্থ হয়। ২০১১ সালের ১১ অক্টোবর সুদ মওকুফোত্তর যাবতীয় পাওনা বন্ধকী সম্পত্তির দায়িকগণের সঙ্গে সমঝোতা হয়। পরে সেই চুক্তিও বাতিল হয়ে যায়। ২০২১ সালের ৫ অক্টোবর ফের নিলাম বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়। কিন্তু বর্তমানে জারি মামলার তপশিল সম্পত্তিসমুহে তৃতীয়পক্ষ জনৈক গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীর কোনো আইনগত অধিকার নেই। তিনি একজন বহিরাগত। উক্ত স্থাপনায় গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীর আইনগত অধিকার না থাকা সত্ত্বেও তিনি দখলে থাকায় তাকে দখলমুক্ত করা আবশ্যক। সার্বিক বিবেচনায় ব্যাংকের আবেদন মঞ্জুর করে জেলা প্রশাসক চট্টগ্রামকে আলম মার্কেটের রিসিভার নিয়োগ করা হলো। রিসিভার মাসিক ৩০ হাজার টাকা হারে সন্মানী পাবেন। আদেশ পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে তিনি দখল গ্রহণ করবেন। প্রতি মাসের ১০ তারিখের মধ্যে আয়-ব্যয়ের হিসাবসহ প্রতিবেদন দাখিল করবেন।