জয়পুরহাটের মেয়ে রাহেনা বেগমের প্রেমে পড়েছেন শ্রীলঙ্কান যুবক রওশন মতিন। সপ্তাহখানেক আগে রওশন জয়পুরহাট সদরের উত্তর পাথুরিয়া গ্রামে প্রেমিকা রাহেনার বাড়ি আসেন। পরে ওই রাতেই ধর্মীয় রীতি মেনে তাঁদের বিয়ে দেওয়া হয়। রাহেনা পাথুরিয়া গ্রামের শাহাদুল ইসলামের মেয়ে।

রাহেনার পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, জর্ডানে গিয়ে একটি কোম্পানিতে কাজ করার সময় প্রতিষ্ঠানটির সুপারভাইজার রওশনের সঙ্গে রাহেনার পরিচয় ও প্রেম হয়। দেড় বছর আগে রওশন শ্রীলঙ্কা ফেরেন। আর গত মার্চে জয়পুরহাটে আসেন রাহেনা।

রাহেনা বেগম বলেন, আগে এলাকায় আমার বিয়ে হয়েছিল, ওই পরিবারে একটি সন্তান রয়েছে। চাকরির সুবাদে ২০১৫ সালে আমি জর্ডান গেলে স্বামী ডিভোর্স দেন। জর্ডানে আমার কোম্পানির সুপারভাইজার রওশন মতিনের সঙ্গে পরিচয় ও সম্পর্ক হয়। দু'জন দু'জনার দেশে ফিরলেও মোবাইলে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল। তিনি আরও বলেন, রওশন আমাকে বিয়ে করতে রাজি হলে, বাংলাদেশে আসতে চান। আমার পরিবারকে জানালে তারা সম্মতি দেন। ২২ সেপ্টেম্বর আমরা বিয়ে করেছি। সুখেই সংসার করছি।

স্ত্রীকে দোভাষী বানিয়ে রওশন মতিন বলেন, রাহেনার পরিবার আমার খুব পছন্দ হয়েছে। তাঁরা অনেক ভালো মানুষ। আমি বিয়ে করেছি, এখানেই থাকতে চাই। আমি বাংলাদেশকে ভালোবাসি।