ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানা এলাকায় শারফুল ইসলাম (৪২) হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বাবা-ছেলেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রোরবার রাতে ময়মনসিংহ নগরী থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তারের পর সোমবার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে র‍্যাব-১৪। র‍্যাবের পক্ষ থেকে সোমবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন- প্রধান অভিযুক্ত মো. অমিত (২৬) ও তার বাবা মো. মিজানুর রহমান (৫২)।

র‍্যাব জানায়, জেলার গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানার টাংগাব ইউনিযনের মেদনারটেক গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন শারফুল। তিনি ওই গ্রামের প্রয়াত আবদুল হামিদের ছেলে।  স্থানীয় ইউসুফ আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরিচালনা কমিটি সভাপতি পদ নিয়ে মতবিরোধ তৈরি হয় প্রতিবেশি ও একই বংশের লোক মো. অমিত ও মিজানুর রহমানদের সঙ্গে। এছাড়া জমি নিয়েও বিরোধ ছিলে দুই পরিবারের। এরই জের ধরে গত ১৮ জুলাই প্রতিপক্ষ মিজানুর রহমান ও অমিতসহ তাদের সঙ্গীরা শারফুলদের বাড়িতে হামলা করেন। ওই সময় শারফুলসহ কয়েকজন আহত হন। শারফুলকে উদ্ধার করে আশঙ্কাজনক ঢাকা মেডিকলে কলেজে ভর্তি করা হয়। সেখানে ১৭ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর গত ৬ আগস্ট মারা যান শারফুল।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই মো. মাহাবুল ইসলাম বাদি হয়ে ৮জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। প্রথমে মারামারি মামলা হলেও পরবর্তীতে হত্যা মামলার ধারা যুক্ত করা হয় মামলায়।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পলাতক থাকা পরোয়ানাভুক্ত আসামিদের ধরতে র‍্যাব তৎপরতা শুরু করে। গত রোববার মধ্যরাতে ময়মনসিংহ নগরী থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‍্যাব-১৪ ময়মনসিংহের কোম্পানী অধিনায়ক আখের মুহম্মদ জয় জনান, হত্যা মামলায় পলাতক থাকা দু'জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। সোমবার দুপুরে দুই আসামিকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে আদালতে সোপর্দ করার জন্য।