বঙ্গোপসাগরে মালয়েশিয়াগামী ট্রলারডুবির ঘটনায় আরও দুই রোহিঙ্গা নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত শিশু ও নারীসহ  ৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। 

বুধবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে টেকনাফের বাহারছড়া শীলখালী থেকে ওই দুই নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন। 

তিনি জানান, ওই এলাকা থেকে ভেসে আসা দুই নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ওই দুই নারী সাগরে ডুবে যাওয়া ট্রলারের যাত্রী ছিলেন বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে। লাশ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার পাঠানো হবে।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার ভোরে অবৈধভাবে সাগরপথে মালয়েশিয়া যাত্রাকালে কক্সবাজারের টেকনাফ উপকূলীয় বঙ্গোপসাগরে ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটে। এতে এখন পর্যন্ত পাঁচ রোহিঙ্গা নারী ও এক শিশুসহ ছয়জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ঘটনায় গতকাল জীবত অবস্থায় ৪৫ জনকে উদ্ধার করেছিল কোস্ট গার্ড। উদ্ধার হওয়াদের তথ্য মতে, এই ট্রলারে ৭০ জনের মতো যাত্রী ছিলেন। সেই হিসেবে এখনও অন্তত ২০ জন নিখোঁজ রয়েছেন।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মো. মাহফুজুল ইসলাম জানান, তারা মূলত দালালের মাধ্যমে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু মাঝপথে দুর্ঘটনার শিকার হয়। কোন কোন দালালের মাধ্যমে তারা মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টা করেছিল তাদের বিষয়ে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। তাদেরকে শিগগিরই আইনের আওতায় আনা হবে।

এর আগে ২০২০ সালে এপ্রিলের শেষে অবৈধভাবে সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া সীমান্তে পৌঁছালেও দেশটিতে প্রবেশ করতে না পেরে টেকনাফের বাহারছড়া সমুদ্র সৈকত থেকে ফিরে আসা ৩৯৬ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করেছিল কোস্ট গার্ড। ওই দলের সঙ্গে থাকা অন্তত ৩০ রোহিঙ্গা খাবার ও পানি সংকটে মারা যায়।