কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের দাফনের গার্ড অব অনার নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের অভিযোগে আব্দুস সাত্তার (৬০) নামে এক লুঙ্গি ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ। রোববার দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে তাকে আটক করা হয়।

আব্দুস সাত্তারের বাড়ি উপজেলার যদুবয়রা ইউনিয়নের উত্তর যদুবয়রা গ্রামে। কুমারখালী পৌরসভার সেরকান্দি এলাকার ‘উপহার লুঙ্গী’ নামে তার একটি দোকান রয়েছে।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এটিএম আবুল মনসুর মজনু বলেন, ‘আব্দুস সাত্তার জামায়াতের কর্মী। তিনি নিজের দোকানে বসে মুক্তিযোদ্ধাদের রাষ্ট্রীয় দাফনে গার্ড অব অনার দেওয়া নিয়ে অশ্নীল মন্তব্য করেন। এর মাধ্যমে তিনি সব মুক্তিযোদ্ধাকে অপমান করেছেন। প্রতিকার চেয়ে আমরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং ওসির কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। আমরা তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

অভিযুক্ত ব্যবসায়ীর ছেলে আসলাম শেখ বলেন, ‘ব্যবসায়িক বিরোধে কেউ শত্রুতা করে বাবাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছেন। এজন্য বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান ও মর্যাদাকে পুঁজি করা হয়েছে। আমি আমার বাবার মুক্তি দাবি করছি।’

কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিতান কুমার মণ্ডল বলেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অপমান করার ঘটনায় লিখিত আবেদন পেয়ে আব্দুস সাত্তারকে তলব করা হয়। কিন্তু তিনি না এসে পলাতক ছিলেন। রোববার সাত্তার আমার দপ্তরে আসেন। মুক্তিযোদ্ধাদের উপস্থিতিতে তিনি কটূক্তির কথা স্বীকার করে ক্ষমা চান। পরে তাঁকে পুলিশে দেওয়া হয়।’

কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহসিন হোসাইন বলেন, ‘আব্দুস সাত্তারের বিরুদ্ধে আগেই লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধারা। মামলার পর তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হবে।’