নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ছাত্রদলের মিছিলে যুবলীগের নেতাকর্মীর হামলা ও ধাওয়ার ঘটনায় যুবলীগ সভাপতি ও সেক্রেটারি সহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলার আবেদন করেছেন নিহত ছাত্রদল নেতা অনিকের বাবা আমির হোসেন।

মঙ্গলবার সকালে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাউসার আহম্মেদ আদালতে আবেদন করেন। এ সময় আদালত আগামী তিন কার্য দিবসের মধ্যে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশের পক্ষ থেকে কী আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা জানতে চেয়ে রূপগঞ্জ থানা পুলিশকে তলব করেছেন। পাশাপাশি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে অনিকের পোস্টমর্টেম রিপোর্ট আদালতে হাজির করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।

মামলায় আওয়ামী লীগের ১৪ জন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১০ জনকে আসামি করা হয়েছে। অভিযুক্তরা হলেন- ভুলতা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মো. রাশেদ ভূইয়া, সাধারণ সম্পাদক মো. ইকবাল শিকদার, আওয়ামী লীগ নেতা বাবু ওরফে কালাই বাবু, রাসেল, মো. শাহীন মিয়া, মো. জাহাঙ্গীর মোল্লা, মো. ওবায়দুর, মো. আলাউদ্দিন, মো. মিজান, রাজীব, মো. রানা, রিফাত ও ইমরান।

মামলার বাদী আমির হোসেন বলেন, ‘আমি আমার সন্তান হত্যার বিচার চাই।’

বাদীর পক্ষে আইনজীবী ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, ‘অনিক রূপগঞ্জের একটি ব্যাংকের সিকিউরিটি গার্ড হিসেবে কাজ করত, পাশাপাশি সে একটি ওয়ার্ডের ছাত্রদলের কমিটির সহ সভাপতি ছিল। গত ৩ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ছাত্রদলের মশাল মিছিল থেকে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা অনিককে তুলে নিয়ে মারধর করে চলন্ত যানবাহনের নিচে ফেলে দিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে। নিহত অনিকের পোস্ট মর্টেম রিপোর্টে তার শরীরে বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তাকে হত্যা করা হয়েছে এবং প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষী অনুযায়ী থানায় মামলা আবেদন করলে মামলা না নেওয়ায় আজ আদালতে মামলার জন্য আবেদন করা হয়। আদালত মামলার বাদী এবং আইনজীবীর বক্তব্য শুনে পোস্টমর্টেমের রিপোর্ট এবং এই বিষয়ে কোনো মামলা হয়েছে কি-না আগামী তিন দিনের মধ্যে আদালতে রিপোর্ট জমা দিতে বলেছেন।’

জানা যায়, গত ৩ নভেম্বর রাতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে মশাল মিছিল বের করেন রূপগঞ্জ থানা ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। মিছিলের শেষ পর্যায়ে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতাকর্মীরা মিছিলকারীদের ওপর হামলা করে ও ধাওয়া দেয়। এ সময় ঘটনাস্থলে মাইক্রবাসের ধাক্কায় গুরুতর আহত হন কাঞ্চন পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সহ সভাপতি অমিত হাসান অনিক। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে মারা যান অনিক।