মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় একদিন বয়সী এক নবজাতককে চুরি হওয়ার ৮ দিন পর উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার রাতে উপজেলার জান্না এলাকার শিরিনের বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নবজাতকের মা বাদী হয়ে ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। পুলিশ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছে।

গ্রেপ্তাররা হলেন- আল মামুন, ইনাম আলী, শিরিন আক্তার ও ময়না বেগম।

জানা গেছে, মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার নালী গ্রামের মো. জাফর আলীর স্ত্রী শিউলি আক্তার চাঁদনীকে গত ১৯ নভেম্বর অস্ত্রোপচার করাতে সাটুরিয়া উপজেলার নয়াডিঙ্গি রিয়া ক্লিনিকে ভর্তি করেন নাজমুল নামের এক ব্যক্তি । ওইদিন রাতেই চাঁদনীর স্বাভাবিক প্রসবের মাধ্যমে একটি ছেলে সন্তানের জন্ম দেন। জন্ম নেওয়ার একঘন্টা পর নাজমুল হোসেন ওই নবজাতককে জান্না গ্রামের শিরিনের কাছে বিক্রি করে দেন। নবজাতকের মা একটু সুস্থ হলে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ চাঁদনীকে জানায় তার শ্বশুর শাশুড়ি এসে নবজাতকে নিয়ে গেছে।

এদিকে, চাঁদনী আক্তার গত ২০ নভেম্বর ক্লিনিক থেকে ছাড়পত্র পেয়ে বাড়ি ফিরে নবজাতককে না পেয়ে শনিবার রাতে সাটুরিয়া থানায় একটি অভিযোগ করেন। পুলিশ অভিযোগ পেয়ে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে শিশুটিকে জান্না গ্রামের শিরিনের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে।

আসামি শিরিন আক্তার জানান, চাঁদনীর কাছ থেকে শিশুটিকে দত্তক নেওয়া হয়েছে স্ট্যাম্পের মাধ্যমে। চাঁদনী গরীব হওয়ায় ক্লিনিকের খরচ দেওয়ার শর্তে তাকে সন্তান দিয়ে দেন।  তিনি শিশুটিকে চুরি করেননি।

শিরিন বলেন, আমি শিশুটিকে ৮ দিন ধরে বাড়িতে লালন পালন করছি। আমার কোন সন্তান হয় না এ বিষয়টি শিশুর মা চাঁদনী জানেন। তিনি আরো বলেন,   চাঁদনী একজন প্রতারক। সে ক্লিনিকে নিজের স্বামী মো. জাফরের নাম না দিয়ে নাজমুল হোসেন নামে একজনকে স্বামী বানিয়ে ক্লিনিকে ভর্তি হয়েছেন।

শিশুর মা চাঁদনী জানান, শিরিন আক্তার আমার শাশুড়ি ও নাজমুল আমার শ্বশুর পরিচয় দিয়ে একদিনের নবজাতককে চুরি করে নেয়। তারা তার কোন আত্মীয় নয়।  সন্তানকে তিনমাসের গর্ভে রেখে তার স্বামী মো. জাফর সড়ক দুঘর্টনায় মারা যান। পরে জানতে পারেন শিরিনই নাজমুল হোসেনকে তার স্বামী বানিয়ে ওই ক্লিনিকে ভর্তি করে শিশুটিকে চুরি করেছে।

সাটুরিয়া থানার ওসি সুকুমার বিশ্বাস বলেন, শনিবার সন্ধ্যার দিকে এক নারী অসুস্থ অবস্থায় থানায় আসেন। তিনি অভিযোগ করেন তার একদিনের সন্তান রিয়া ক্লিনিক থেকে চুরি হয়েছে। পরে ওই রাতেই তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে নবজাতককে  উদ্ধার করি সাটুরিয়ার জান্না এলাকার শিরিনের বাড়ি থেকে। এ ঘটনায় জড়িত ৬ আসামির মধ্যে ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছি। তাদের বিরুদ্ধে নবজাতকের মা শিউলি আক্তার চাঁদনী বাদী হয়ে একটি শিশু চুরি মামলা করেছেন।