জেলা পর্যায়ে প্রাণবন্ত বিতর্ক শেষে বিজয়ীদের অংশগ্রহণে চলছে বিভাগীয় বিতর্ক উৎসব। 'বিতর্ক মানেই যুক্তি, বিজ্ঞানে মুক্তি' প্রতিপাদ্যে সমকাল সুহৃদ সমাবেশের আয়োজনে ও বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের (বিএফএফ) সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত স্কুল পর্যায়ে দেশের সবচেয়ে বড় বিতর্কের আসর- 'বিএফএফ-সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসব-২০২২'-এর পাওয়ার্ড বাই হিসেবে রয়েছে পূবালী ব্যাংক লিমিটেড। খুলনা, সিলেট ও ময়মনসিংহ সমকালের ব্যুরো অফিস ও সুহৃদদের পাঠানো খবর ও ছবিতে আয়োজন...

যুক্তি পাল্টা যুক্তির খেলার পাশাপাশি বিজ্ঞান ও যুক্তি দিয়ে জীবনকে নতুন করে সাজানোর প্রত্যয় নিয়ে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হলো বিএফএফ-সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসব-২০২২-এর খুলনা বিভাগীয় পর্যায়ের উৎসব। খুলনা বিভাগের ১০টি জেলার সেরা বিতার্কিকরা বিভাগীয় পর্যায়ের এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। তাদের ক্ষুরধার যুক্তি, চুলচেরা বিশ্নেষণ ও প্রাণবন্ত বিতর্কে দিনভর উৎসবমুখর ছিল খুলনা প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণ।

যুক্তি ও তর্কের মাধ্যমে অনেক কিছু শেখার আছে। বিতর্কের দ্বন্দ্বে বিকশিত হয় সুন্দর। এর সঙ্গে বিজ্ঞান যুক্ত হলে আরও একটি উদ্ভাবনী দরজা খুলে যায়। বিজ্ঞান ও যুক্তি একসঙ্গে চললে আমাদের জীবন আরও সুন্দর হবে। অনুষ্ঠানে এমন কথাই উচ্চারিত হয় অতিথিদের মুখে।

উৎসবে খুলনা অঞ্চলের জেলাগুলোর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ বিতর্কে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে খুলনা জিলা স্কুল। রানার্সআপ হয় বাগেরহাট বহুমুখী কলেজিয়েট স্কুল। খুলনা জিলা স্কুলের দলনেতা নাফিজ ফুয়াদ রাজা সেরা বক্তার খেতাব পায়।

বৃহস্পতিবার নির্ধারিত সময়ের আগেই বিভিন্ন জেলার খুদে বিতার্কিকরা জড়ো হয় খুলনা প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে। প্রধান অতিথি হিসেবে বিতর্ক প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক। তিনি শিক্ষার্থীদের যুক্তির সিঁড়ি বেয়ে যে কোনো সমস্যা সমাধানের পরামর্শ দেন। সঙ্গে সঙ্গে বিজ্ঞান শিক্ষায় নতুন প্রজন্ম যাতে বেশি করে উদ্বুদ্ধ হয়, সেদিকে দৃষ্টি রাখতে অভিভাবকদের পরামর্শ দেন। তিনি প্রতি বছর এ ধরনের সৃজনশীল প্রতিযোগিতা আয়োজনের জন্য সমকালকে ধন্যবাদ জানান।

এর আগে নিজ নিজ জেলা পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হয়ে বিভাগীয় পর্যায়ের এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে খুলনা জিলা স্কুল, বাগেরহাট বহুমুখী কলেজিয়েট স্কুল, যশোর জিলা স্কুল, ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চুয়াডাঙ্গার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও মাগুরা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়।

বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন খুলনার আযম খান সরকারি কমার্স কলেজের অধ্যাপক শেখ শফিউল আজম বাবু, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের সহকারী অধ্যাপক শেখ দিদারুল আলম, আযম খান সরকারি কমার্স কলেজের সহকারী অধ্যাপক এম এম কবির আহমেদ, বাংলাদেশ ব্যাংক খুলনা কার্যালয়ের যুগ্ম পরিচালক সারওয়ার আখতার, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মোর্শেদুল ইসলাম প্রমুখ।

সময় নিয়ন্ত্রক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিক সংগঠন নৈয়ায়িকের সাবেক সংগঠক তৈয়াবুর রহমান ও নৈয়ায়িকের সদস্য বিতার্কিক তানহা তানজীব।

প্রতিযোগিতায় তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে খুলনার জিলা স্কুল, বাগেরহাট বহুমুখী কলেজিয়েট স্কুল, যশোর জিলা স্কুল ও ঝিনাইদহ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সেমিফাইনালে ওঠে। এর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ফাইনালে ৭ দশমিক ৫ পয়েন্টের ব্যবধানে খুলনা জিলা স্কুুল চ্যাম্পিয়ন হয়।

চ্যাম্পিয়ন দলের ৩ সদস্য খুলনা জিলা স্কুলের নাফিজ ফুয়াদ রাজা, পিনাক মুগ্ধ দাশ ও রইসুল ইসলাম জিওন জানায়, বিজ্ঞানবিষয়ক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় খুলনা বিভাগের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন হতে পেরে খুবই আনন্দ লাগছে। তারা আশা করছে জাতীয় পর্যায়েও চ্যাম্পিয়ন হবে।

রানার্সআপ দল বাগেরহাট বহুমুখী কলেজিয়েট স্কুলের পুষ্পিতা হালদার, আনিসা পারভীন যূথি ও দলনেতা জয়তু কুমার বালা জানায়, এ ধরনের একটি প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। ছোট ভুলগুলো দূর করে ভবিষ্যতে আরও ভালো করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তারা।

দিনব্যাপী প্রতিযোগিতা শেষে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলের হাতে সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট তুলে দেন অতিথি ও বিচারকরা। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- সমকালের খুলনা ব্যুরোপ্রধান মামুন রেজা, স্টাফ রিপোর্টার হাসান হিমালয়, ফটো সাংবাদিক জাহিদুল ইসলাম, মেহেরপুর প্রতিনিধি ফারুক হোসেন, সুহৃদ আহ্বায়ক এম সাইফুল ইসলাম, সুহৃদ সমাবেশের সদস্য ফারজানা ইয়াসমীন বীথি, রাহাত জামিল, ইমরান হোসেন, প্রিয়া রহমান, মেহবুবা আকতার, সাব্বির আহমেদ রোহান, আবুল আহাদ শেখ প্রমুখ।

আহ্বায়ক সুহৃদ সমাবেশ, খুলনা