রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনে উৎসবমুখর পরিবেশে মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমা দেয়া শেষ হয়েছে। সকাল থেকে আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে ভিড় করেন প্রার্থী ও কর্মী-সমর্থকরা। আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টির প্রার্থীসহ ১০ জন মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

তপশিল অনুযায়ী আগামী ২৭ ডিসেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। প্রার্থিতা বাছাই ১ ডিসেম্বর ও মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৮ ডিসেম্বর।

মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী হোসনে আরা লুৎফা ডালিয়া। এ সময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের রংপুর নগর বাস্তবায়নে নগরবাসী আমাকে বেছে নেবেন বলে আমি মনে করি।

দুপুর সাড়ে ১২টায় জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রার্থী দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা রিটার্নিং অফিসার আব্দুল বাতেনের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন। তিনি বলেন, রংপুর সিটিবাসী আমাকে আবার নির্বাচিত করবে বলে আশা করছি।

এ সময় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান এস এম ইয়াসির আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল মাসুদ নান্টুসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া অন্য প্রার্থীরা হলেন বাংলাদেশ কংগ্রেসের আবু রায়হান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমিরুজ্জামান, জাকের পার্টির খোরশেদ আলম, খেলাফতে মজলিসের তৌহিদুর রহমান মণ্ডল ও জাসদের (ইনু) শফিয়ার রহমান এবং স্বতন্ত্র আতাউজ্জামান বাবু, লতিফুর রহমান ও মেহেদি হাসান বনি। কাউন্সিলর পদে ১৯৮ ও নারী কাউন্সিলর পদে ৬৯টি মনোনয়নপত্র জমা পড়েছে।

অন্যদিকে রসিক নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী কাওছার জামান বাবলা। মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই ঘোষণা দেন।

বাবলা বলেন, ইভিএমে ফলাফল পাল্টে দেওয়া অত্যন্ত সহজ। নির্বাচন ইভিএমে হলে তা সুষ্ঠু হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। ইভিএমে ভোট চুরির অনেক উদাহরণ আছে।

তিনি আরও বলেন, বিএনপি এ নির্বাচন করবে না। তিনি দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যাবেন না।