প্রায় পাঁচ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে আনান কেমিক্যালসসের পরিচালক প্রিতিশ কুমার হালদারের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন। তিনি আলোচিত অর্থ লোপাটকারি প্রশান্ত কুমার হালদারের (পিকে হালদার) ভাই। 

গত ১ ডিসেম্বর দুদকের প্রধান কার্যালয়ের উপপরিচাপলক গুলশান আনোয়ার প্রধান বাদি হয়ে কমিশনের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এ মামলা দায়ের করেন। অভিযোগ করা হয়, অসৎ উদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও সম্পদ বিবরণী দুদকে জমা না দিয়ে শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন প্রিতিশ কুমার।

অনুসন্ধানে তার নামে মোট ৪ কোটি ৮৪ লাখ ৯৭ হাজার টাকার সম্পদ পাওয়া গেছে, যা তার জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ। এই সম্পদ নিজ ভোগদখলে রেখেছেন এবং নির্ধারিত সময়ে দুদকে সম্পদের হিসাব জমা দেননি।

ভারতে গ্রেফতার পি কে হালদার দেশের ইন্টারন্যাশনাল লিজিংসহ একাধিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে শত শত কোটি টাকা লোপাট করেছেন। প্রিতিশ কুমার তার ভাই পি কে হালদারের ছত্রছায়ায় থেকে অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন। এজাহারে বলা হয়, প্রিতিশ কুমার আয়কর নথি খোলেন ২০১৮-২০১৯ করবর্ষে। আয়কর নথির তথ্য বিশ্নেষণে জানা যায়, ২০১৮-২০১৯ থেকে ২০২০-২০২১ করবর্ষ পর্যন্ত তার মোট আয় ছিল ৪১ লাখ ৯৭ হাজার ৫শ' টাকা। পরিবারিক ব্যয়সহ অন্যান্য ব্যয় ছিল মোট সাড়ে ৯ লাখ টাকার। আয়কর নথিতে উল্লিখিত ব্যবসার আয় হিসাবে প্রদর্শিত ৪১ লাখ ৯৭ হাজার ৫শ' টাকার আয় অগ্রহণযোগ্য ও অবৈধ। এসব আয় ব্যবসার বা পেশার আয় দেখানো হলেও অনুসন্ধানকালে ব্যবসা বা পেশা সংক্রান্ত কোন দালিলিক প্রমাণ তিনি উপস্থাপন করতে পারেননি। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে আয়কর নথিতে ঋণ হিসেবে প্রিতিশ কুমার সাড়ে ৩ কোটি টাকার কথা উল্লেখ করেন। তিনি কার কাছ থেকে ঋণ নিয়েছেন এ সংক্রান্ত কাগজপত্র তিনি দেখাতে ব্যর্থ হন।