দক্ষিণ কোরিয়া ফুটবল দলের সেরা তারকা টটেনহ্যামে খেলা স্ট্রাইকার সন হিউয়েন মিন। দ্বিতীয় সেরা তারকা সম্ভবত কিম মিন জে। তিনি সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার। দীর্ঘদেহি এই তরুণ ডিফেন্ডার খেলেন ইতালির জায়ান্ট ইন্টার মিলানে। ব্রাজিলের বিপক্ষে শেষ ষোলোর লড়াইয়ে তার মাঠে থাকা খুব জরুরি। 

কিন্তু কিম ইনজুরিতে আছেন। উরুগুয়ে ও ঘানার বিপক্ষে ম্যাচে খেললেও পর্তুগালের বিপক্ষে দলের কামব্যাকের জয় বেঞ্চে বসে দেখতে হয়েছে তার। কাফ ইনজুরিতে পড়েছেন তিনি। অনেকটাই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। ইনজুরির ঝুঁকি কিছুটা থাকলেও তিনি সেলেসাওদের বিপক্ষে খেলতে চান। আরও বড় ইনজুরিতে পড়ার ঝুঁকি নিতেও তিনি প্রস্তুত। 

কিম মিন বলেছেন, ‘তারা সকলেই ভালো খেলেছে। কিন্তু এখন আমাদের আরও ভালো খেলতে হবে। বেঞ্চে বসে থাকা ছিল খুবই কঠিন। বেঞ্চ থেকে ম্যাচ দেখাও কঠিন। কিন্তু ইনজুরিতে পড়ায় আমি শতভাগ ফিট ছিলাম না। ব্রাজিলের বিপক্ষে খেলার জন্য আমি সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করতে চাই। আমি খেলতে প্রস্তুত, এর জন্য যদি বড় ইনজুরি হয় তবুও।’ 

সোমবার বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় ব্রাজিল ও দক্ষিণ কোরিয়া মুখোমুখি হবে। এর আগে এশিয়ার প্রতিনিধিরা মাত্র দু’বার নকআউট পর্বে খেলেছে। ২০১০ আসরের পর এবারই তারা নকআউটে খেলছে। অন্যদিকে আসরের অন্যতম ফেবারিট ব্রাজিল শেষ ষোলোর ম্যাচের আগে ইনজুরি নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে। নেইমার এখনও পুরোপুরি ফিট নন, দানিলো-সান্দ্রো ইনজুরিতে আছেন। ওদিকে জেসুস-টেলেসের বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেছে। এখন লেফট ব্যাকে খেলার মতো কেউ নেই তিতের হাতে।