আগামী ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে আলোচনায় আসেন বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান মুখলিছ মিয়া ও তাঁর স্ত্রী মাসুমা আক্তার।

গতকাল শনিবার নির্বাচন কমিশন যাচাই-বাছাই শেষে মুখলিছ মিয়ার মনোনয়নপত্রটি অবৈধ ঘোষণা করে। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাসুমার মনোনয়নটি বৈধ ঘোষিত হয়েছে। তিনিসহ চেয়ারম্যান পদে মোট প্রার্থী সংখ্যা পাঁচজন। তবে মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল করার সুযোগ রয়েছে মুখলিছ মিয়ার।

রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান, নুরপুর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ছয় প্রার্থীসহ সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্য পদে মোট ৪৮ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন।

তিনি আরও জানান, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংক থেকে দুটি ঋণখেলাপির চিঠি আসায় চেয়ারম্যান প্রার্থী মুখলিছ মিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এখন তিনটি পদে ৪৭ জন প্রার্থী রয়েছেন।

চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা হলেন- গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী, আবদুল সোবাহান ছায়েদ, এম এম হেলাল, আওয়ামী লীগ প্রার্থী সেবন মিয়া ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুমা আক্তার।

মুখলিছ মিয়া বলেন, 'আমার এখনও আপিল করার সুযোগ রয়েছে। দেখি কী হয়।' তবে প্রার্থিতা ফিরে না পেলে স্ত্রীকে সমর্থন করবেন কিনা- এমন প্রশ্নের উত্তরে নির্দিষ্টভাবে কিছু বলেননি তিনি।