মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য বিএনপি আবার নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে চায়। তারা আবার দেশে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করতে চায়। তারা স্কুল, বাড়িঘরে আগুন দিতে চায়। রাস্তাঘাটে মানুষজষের ওপর হামলা করতে চায়।

সোমবার দুপুরে নাজিরপুর উপজেলা শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে উন্নয়ন সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, একটা সময় বিএনপির আগুন সন্ত্রাসের কারণে জীবন্ত মানুষ পুড়ে কয়লা হয়ে গেছে। তারা ট্রাকে নিয়ে যাওয়া গরু পুড়িয়ে কয়লা করে ফেলেছে। সারাদেশে পেট্রোল বোমা মেরে তারা সাধারণ মানুষকে ক্ষত বিক্ষত করেছে। এ কারণে ঢাকার বার্ণ ইউনিট স্থাপন করা হয়েছিল। বিএনপি আবারও সহিংসতা করতে চায়। তারা যদি আবার অপরাজনীতি করতে চায়, বাংলার মানুষ তার দাঁত ভাঙা জবাব দেবে।

শ ম রেজাউল বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাই এদেশের স্বাধীনতাপ্রিয় মানুষের আশা-আকাঙ্খার শেষ ভরসাস্থল। এটা আজ প্রমাণিত। তার বিস্ময়কর নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের ক্ষেত্রে বিশ্বের একটি অনুকরণীয় রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। তিনি সুযোগ্য রাষ্ট্রনায়কের স্বীকৃতি পেয়েছেন। এ কারণেই তাকে হত্যা করার জন্য ২১ বার ঘৃণ্য অপচেষ্টা চালানো হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার পরিবার সবসময় জাতির কল্যাণে নিবেদিত। জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু সারা জীবন দেশ ও জাতীর কল্যাণে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন। তার কন্যা শেখ হাসিনাও একইভাবে দেশের উন্ননে নিজেকে বিলিয়ে দিচ্ছেন। অন্যদিকে, বিএনপির নেত্রী খালেদা জিয়া এবং তার ছেলে তারেক রহমান নিজের উন্নয়নে লুটপাট করে অর্থ উপার্জন করছেন। আদালত থেকে তারা দণ্ডিত হয়েছেন।

নাজিরপুর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শেখ মোস্তাফিজুর রহমান রঞ্জুর সভাপতিত্বে ও যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক চঞ্চল কান্তি বিশ্বাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক গৌতম রায় চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম ফরাজী, উপজেলা কৃষক লীগের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম নজরুল ইসলাম বাবুল, অ্যাডভোকেট নির্জন কান্তি বিশ্বাস, ইউপি চেয়ারম্যান আতিয়ার রহমান চৌধুরী নান্নু, জেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক সিকদার চাঁন, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সুখরঞ্জন ব্যাপারী, জেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল আহসান জিয়াসহ আরও অনেকে।

এর আগে সকালে ৬ কোটি ৪৮ লাখ ৮৩ হাজার টাকা ব্যয়ে নাজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাঁচতলা ফাউন্ডেশনসহ দ্বিতল নতুন ভবনের নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন মন্ত্রী।