ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ভোটযুদ্ধে আওয়ামী লীগ বনাম আওয়ামী লীগ

ভোটযুদ্ধে আওয়ামী লীগ  বনাম আওয়ামী লীগ

.

 রাজশাহী ব্যুরো

প্রকাশ: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ২২:৪৯

জাতীয় নির্বাচনের পরপরই রাজশাহীতে উপজেলা পরিষদ ভোটের হাওয়া বইতে শুরু করেছে। দলীয় প্রতীক না থাকায় এবার আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী মাঠে থাকতে পারেন। তবে এ নির্বাচনে বিএনপির অংশ নেওয়া এখনও নিশ্চিত নয়। জেলার ৯ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে অর্ধশতাধিক প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুতি শুরু করেছেন। আওয়ামী লীগের সবাই স্থানীয় এমপি ও দলীয় নেতাকর্মীর সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করছেন। ফলে চেয়ারম্যান পদে এবার আওয়ামী লীগের সঙ্গে দলীয় নেতাদেরই ভোটযুদ্ধ হতে পারে।  

গোদাগাড়ী 
এখানে বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, ভাইস চেয়ারম্যান গোদাগাড়ী পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সম্পাদক আব্দুল মালেক, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশীদ, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম মুক্তি, গোদাগাড়ী পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি রবিউল আলমসহ বেশ কয়েকজন আলোচনায় রয়েছেন। তবে এমপি ফারুক চৌধুরীর পক্ষের নেতা জাহাঙ্গীর আলম ও বেলাল উদ্দীন সোহেল দলীয় সমর্থন পেতে পারেন বলে চাউর রয়েছে। উপজেলায় এমপিবিরোধী নেতা গোলাম রাব্বানীর পক্ষে প্রার্থী হতে পারেন আব্দুল মালেক কিংবা মাহবুব আলম মুক্তি।

তানোর
বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না, নারী ভাইস চেয়ারম্যান উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোনিয়া সরদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাইনুল ইসলাম স্বপন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও শরিফুল ইসলাম প্রার্থী হতে চান। 

পবা
পবায় বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইয়াসিন আলী, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান মানজাল, সদস্য ফারুক হোসেন ডাবলু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াজেদ আলী খান, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এমদাদুল হক এমদাদ প্রার্থী হতে পারেন। এখানে ইয়াসিন আলীর সঙ্গে এমদাদুল হকের লড়াই হতে পারে।

মোহনপুর
বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম, বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মেহেবুব হাসান রাসেল, জেলা যুবলীগের সাবেক সহসভাপতি মোর্শেদ হাসান রঞ্জুসহ বেশ কয়েকজন আলোচনায় রয়েছেন। শেষমেশ লড়াই হতে পারে আব্দুস সালামের সঙ্গে আফজাল হোসেন বকুলের।

বাগমারা
বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অনিল কুমার সরকার, সাবেক চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জাকিরুল ইসলাম সান্টু, ইব্রাহিম হোসেন, গোয়ালকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলমগীর সরকার প্রমুখ প্রার্থী হতে পারেন। সাবেক এমপি এনামুল হকের অনুসারী হিসেবে পরিচিত অনিল সরকার প্রার্থী হবেন না বলে শোনা যাচ্ছে। 

পুঠিয়া
উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জি এম হীরা বাচ্চু, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন মুকুল, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সামাদ, জেলা পরিষদের সদস্য আসাদুজ্জামান মাসুদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক শাহরিয়ার রহিম কনক, সাবেক সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রার্থী হতে পারেন। এখানে জি এম হীরা বাচ্চুর সঙ্গে আব্দুস সামাদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতে পারে।

দুর্গাপুর
উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ সরদার, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক প্রদ্যুৎ কুমার সরকার, দুর্গাপুর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুজ্জামান শরিফ, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি ইস্তাজুল ইসলাম বাপ্পী ও দেলুয়াবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম প্রার্থী হতে পারেন। এখানে নজরুল ইসলামের সঙ্গে আব্দুল মজিদের ভোটযুদ্ধ হতে পারে।

চারঘাট
চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক ফখরুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া বিপ্লব, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি কাজী মাহমুদুল হাসান মামুন প্রার্থী হতে পারেন। এখানে

স্থানীয় এমপি শাহরিয়ার আলমের অনুসারী ফখরুল ইসলামের সঙ্গে সাবেক এমপি রাহেনুল হক রায়হানের অনুসারী গোলাম কিবরিয়া বিপ্লবের ভোটযুদ্ধ হতে পারে। 
বাঘা
চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লায়েব উদ্দিন লাভলু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম তৌহিদ আল মাসুদ হোসেন তুহিন প্রার্থী হতে পারেন। এখানে লায়েব উদ্দিন লাভলুর সঙ্গে আশরাফুল ইসলাম বাবুলের ভোটযুদ্ধ হতে পারে।
উপজেলা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অনিল সরকার বলেন, এবার প্রতীক ও দলীয় প্রার্থী থাকবে না। সে ক্ষেত্রে যে কেউ প্রার্থী হতে পারেন। 
বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু বলেন, চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে আমরা কোনো নির্বাচনে যাব না। 

আরও পড়ুন

×