ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

গাইবান্ধায় অবস্থান কর্মসূচি

‘ফসলি জমিতে ইপিজেড চান না সাঁওতালরা’

‘ফসলি জমিতে ইপিজেড চান না সাঁওতালরা’

ফসলি ইপিজেড নির্মাণের উদ্যোগ বাতিলের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচিতে সাঁওতালরা। ছবি: সমকাল

গাইবান্ধা প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৭ মার্চ ২০২৪ | ২১:০২

গোবিন্দগঞ্জে সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্মের ইক্ষু খামারের জমিতে ইপিজেড নির্মাণের উদ্যোগ বাতিলসহ বিভিন্ন দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন সাঁওতালরা। বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপিও দিয়েছেন তারা। সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্ম ভূমি পুনরুদ্ধার সংগ্রাম কমিটি ও আদিবাসী-বাঙালি সংহতি পরিষদ এ কর্মসূচির আয়োজন করে।

বক্তারা বলেন, ইপিজেড নির্মাণের নামে সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্মের ভেতরে সাঁওতালদের বাপ-দাদার তিন ফসলি জমি থেকে উচ্ছেদ করা যাবে না। শহীদ শ্যামল হেমব্রম, রমেশ টুডু ও মঙ্গল মারডির রক্তে ভেজা জমিতে ইপিজেড করা যাবে না। গোবিন্দগঞ্জের সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্মের ১ হাজার ৮৪২ একর জমি আদিবাসীদের ফিরিয়ে দিতে হবে।

এ সময় হামলা, অগ্নিসংযোগ, গুলিবর্ষণ ও লুটপাটের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি জানান বক্তারা। পাশাপাশি গুলিতে নিহত ও আহত সাঁওতাল পরিবারগুলোকে ক্ষতিপূরণ, মামলা প্রত্যাহার ও হয়রানি বন্ধ, জমি পুনরুদ্ধার চুক্তি বাস্তবায়ন, সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনা এবং রংপুর চিনিকল বন্ধের পর দুর্নীতি ও টাকা আত্মসাতের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপের দাবি জানান তারা।

বক্তারা আরও বলেন, সাঁওতালসহ বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর ওপর নির্যাতন ও উচ্ছেদ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকলে তারা দেশান্তরে বাধ্য হবেন। এতে ভাষা, সাংস্কৃতিক ও প্রাকৃতিক বৈচিত্র্যের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে। সাঁওতালসহ বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর শূন্যতা ঠেকাতে তাদের প্রতি সহিংসতা, নির্যাতন ও উচ্ছেদ বন্ধ করতে হবে।

জানা গেছে, ইক্ষু খামারসংলগ্ন মাদারপুর, জয়পুরপাড়া ও সাহেবগঞ্জ মেরীসহ কয়েকটি গ্রাম থেকে সাঁওতাল ও বাঙালিরা গাইবান্ধা জেলা শহরে আসেন। পরে গাইবান্ধা-পলাশবাড়ী সড়কের সুখশান্তির বাজার এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে যান। সেখানে তাদের প্রতিনিধিরা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. মশিউর রহমানের হাতে ইপিজেড নির্মাণ বাতিলসহ বিভিন্ন দাবিসংবলিত স্মারকলিপি দেন। এ সময় তিনি বিষয়টি সরকারের উচ্চপর্যায়ে জানাবেন বলে আশ্বাস দেন। সেখান থেকে তারা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে গিয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন। এতে তীর-ধনুক, ফেস্টুন ও ব্যানার হাতে শতাধিক সাঁওতাল ও বাঙালি অংশ নেন। 

সাহেবগঞ্জ বাগদা ফার্ম ভূমি পুনরুদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ফিলিমন বাস্কের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন– আদিবাসী-বাঙালি সংহতি পরিষদের আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম বাবু, জাতীয় আদিবাসী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বিচিত্রা তির্কী, গাইবান্ধা সামাজিক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর কবির তনু, সদস্য সচিব মোরশেদ হাসান দীপন প্রমুখ।


 

আরও পড়ুন

×