ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

এক ইউনিয়নে ৬২ কোটি টাকার টমেটো বিক্রি

এক ইউনিয়নে ৬২ কোটি টাকার টমেটো বিক্রি

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ার কলাবাড়ী ইউনিয়নের কালিগঞ্জ বাজারে বিক্রির জন্য রাখা টমেটো সমকাল

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৭ মার্চ ২০২৪ | ২৩:৪৩

ঘেরের আইলে উৎপাদিত টমেটো বিক্রি করে এক মৌসুমেই ৬২ কোটি টাকা ঘরে তুলছেন একটি ইউনিয়নের কৃষকরা। নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে টমেটো বিক্রি হয়েছে ফেব্রুয়ারি মাসজুড়ে।
ইউনিয়নটির নাম কলাবাড়ী। এটি গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায়। এলাকাটি নিম্ন জলাভূমি বেষ্টিত। তাই সব জমিই এক ফসলি। এসব জমিতে ঘের করে কৃষক বর্ষাকালে মাছ চাষ করেন। শুষ্ক মৌসুমে সেখানে চাষ করা হয় বোরো ধান। আর ঘেরের উঁচু আইলে সারাবছর বছর শাক, সবজি ও টমেটোর আবাদ করেন তারা। এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি না রেখে জমির সর্বোচ্চ ব্যবহার করে কৃষকরা বছর ভরেই অর্থ উপার্জন করছেন। তারা ঘেরের আইলে আবাদ করেন টমেটো। 
কোটালীপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দোলন চন্দ্র রায় বলেন, গত টমেটো মৌসুমে কলাবাড়ী ইউনিয়নে ঘেরের আইলে ৩১০ হেক্টরে টমেটোর আবাদ হয়। প্রতি হেক্টরে ১ হাজার ২৫০ মণ টমেটো ফলেছে। সে হিসাবে কলাবাড়ী ইউনিয়নে ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৫০০ মণ টমেটো উৎপাদিত হয়েছে। প্রতি কেজি টমেটো গড়ে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। এই ইউনিয়নে ৬২ কোটি টাকার টমেটো কোনাবেচা হয়েছে। প্রতিদিন এখানে গড়ে ৪ হাজার ২৫০ মণ টমেটো বিক্রি হয়েছে। যার গড় বাজারদর ৬৮ লাখ টাকা। ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, নভেম্বরের মাঝামাঝি টমেটো বিক্রি শুরু হয়। ডিসেম্বের ও জানুয়ারিতে সবেচেয়ে বেশি টমেটো বিক্রি হয়েছে। ফেব্রুয়ারি মাসে টমেটো বিক্রি শেষ হয়েছে। 
কলাবাড়ী ইউনিয়নের নলুয়া গ্রামের কৃষক পরিতোষ হালদার বলেন, ঘেরের আইলে এক একরে টমেটোর আবাদ করেছেন। ফলন ভালো হয়েছে। মৌসুমের শুরুতে প্রতি কেজি টমেটো ১০০ টাকা দরে বিক্রি করেছেন। শেষের দিকে প্রতি কেজি টমেটো সাড়ে ১২ টাকা দরে বিক্রি করছেন। গত তিন মাসে গড়ে প্রতি কেজি টমেটো ৪০ টাকা দরে বিক্রি করতে পেরেছেন। এক একরের টমেটো থেকে অন্তত ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা লাভ হয়েছে। 
কলাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান বিজন বিশ্বাস বলেন, তাঁর ইউনিয়নের কৃষকরা খুবই পরিশ্রিমী। তারা বিলের জমিতে ঘের করে সারা বছর মাছ, ধান, শাক, সবজি, টমেটোসহ বিভিন্ন ফসল ফলান। জমির সর্বোত্তম ব্যবহার করে তারা আর্থসামাজিক অবস্থার ব্যাপক পরিবর্তন ঘটিয়েছেন। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিজ নির্বাচনী এলাকা কোটালীপাড়া উপজেলার এ ইউনিয়নের কৃষিভিত্তিক অর্থনীতি খুবই চাঙ্গা ও মজবুত। 
আড়তদার নিখিল বসু, পরেশ পান্ডে, শংকর হাজরা, শফিক মোল্লা, আল-আমিন মোল্লা বলেন, এ বছর কৃষক টমেটোর ভালো দাম পেয়েছেন। প্রথম ৪ হাজার টাকা মণ দরে টমেটো কেনাবেচা হয়েছে। শেষের দিকে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা মণ দরে টমেটো বিক্রি হয়েছে। গড়ে এ বছর প্রতিমণ টমেটো এক হাজার ৬০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। তাদের হিসাবে এই ইউনিয়নে প্রতিদিন গড়ে ৬৮ লাখ টাকার টমেটো বিক্রি হয়েছে। এ টমেটো আকারে বড়। খেতে সুস্বাদু। তাই দেশের বিভিন্ন জেলায় এ টমেটোর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।
মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগরের পাইকারি ক্রেতা ইমন হোসেন রাজু বলেন, এই টমেটোর মান ভালো। পরিবহন করার সময় টমেটো তেমন নষ্ট হয় না।  রং ও আকার  আকর্ষণীয়। খেতে দারুণ। এসব কারণে কলাবাড়ী ইউনিয়নের টমেটো বাজারে একটু বেশি দামে বিক্রি হয়। এ টমেটো বিক্রি করে কিছু টাকা লাভ থাকে। তাই প্রতিবছর এখান থেকে টমেটো নিয়ে ঢাকা, মুন্সীগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় বাজারজাত করে থাকেন।
 

আরও পড়ুন

×