গণমাধ্যমের কারণে বিদেশিরা নিজেদের এ দেশের রাজা মনে করে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। আজ বুধবার সিলেটের ইপিআই ভবনে সিভিল সার্জনের কার্যালয় আয়োজিত কমিউনিটি ক্লিনিক বিষয়ক মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, মিডিয়ার কারণে বিদেশিরা পাত্তা পাচ্ছে। আপনারা (মিডিয়া) বিদেশিদের কাভার বন্ধ করে দেন। দেখবেন, তারা ঘরে বসে থাকবে। আপনাদের কারণে তারা মজা পায়। তারা নিজেদের এ দেশের রাজা মনে করে।

বাংলাদেশের মতো গণমাধ্যমের স্বাধীনতা অন্য কোথাও নেই বলে দাবি করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখানে সাড়ে ১২ হাজার পত্রিকা এবং ৪৫টি টেলিভিশন আছে। ১৮টি সাময়িকী বের হয়। আর কোথায় এমন আছে?

মোমেন বলেন, বাংলাদেশ পৃথিবীর মধ্যে অন্যতম দেশ, যেখানে মানবাধিকার, গণতন্ত্র, ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় ৩০ লাখ লোক রক্ত দিয়েছে। গণতন্ত্র, ন্যায়বিচার, মানবাধিকারের জন্য এত লোক পৃথিবীর আর কোথাও রক্ত দেয়নি। এখানে প্রতিটি মানুষের হৃদয়ে গণতন্ত্র রয়েছে। অথচ বিদেশিরা মাঝেমধ্যে আমাদের যে সুপারিশ দেয়, সেগুলো খুব অলীক মনে হয়। তারা এসেছে আমাদের মানবাধিকার আর গণতন্ত্র বোঝাতে।

বাংলাদেশের নির্বাচনে ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ লোক ভোট দেয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, অনেক দেশে ২৫-৩০ শতাংশ লোকও ভোট দেয় না। সেসব দেশে নির্বাচনে প্রার্থী খুঁজে পাওয়া যায় না। অথচ এদেশে একেকটি পদে বিপুল সংখ্যক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এরপর তারা বকবক করে। নিজের দিকে তাকায় না।

কমিউনিটি ক্লিনিক প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকের কারণে দেশে মাতৃমৃত্যু-শিশুমৃত্যু অনেক কমে গেছে। আগে মৃত্যুর হার ছিল ৮৬ শতাংশ। এর মধ্যে সিলেটে শিশুমৃত্যু-মাতৃমৃত্যু সবচেয়ে বেশি ছিল। এখন সেটা অনেক কমে এসেছে।

তিনি বলেন, সিলেটে আরও সাতটি নতুন কমিউনিটি ক্লিনিক চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমাদের ২৪ টি নতুন কমিউনিটি ক্লিনিকের প্রয়োজন। আশা করছি, এগুলো শিগগিরই পেয়ে যাবো।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, গত ১৪ বছরে বাংলাদেশ সবক্ষেত্রে অভাবনীয় উন্নতি করেছে। আমরা দারিদ্র অর্ধেকে নামিয়ে এনেছি। আমরা উন্নতি করছি তাই অনেকের চোখে পড়ছে। অনেকে ফায়দাও লুটতে চাচ্ছেন।

মোমেন বলেন, এখানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে। কিন্তু আমাদের কিছু লোকজন চায় না শান্তি হোক। কারণ অশান্তি হলে তাদের ব্যক্তিগত ফায়দা হয়। এজন্য বিভিন্ন লোকদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে তারা অশান্তি সৃষ্টি করতে চায়।

তিনি আরও বলেন, অনেক বিরোধী দল দেশে উন্নতি চায় না বলে বিদেশে অপপ্রচার চালাচ্ছে। তারা নিজের পা কেটে হলেও দেশের ক্ষতি করতে চায় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এর আগে মতবিনিময় সভায় স্বাস্থ্য বিভাগ সিলেটের পরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় এবং সিভিল সার্জন ডা. এসএম শাহরিয়ারসহ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা বক্তব্য রাখেন।