স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, বিশ্ব ইজতেমা সফলভাবে সম্পন্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। বিদ্যমান দুই গ্রুপ আলাদাভাবে দুই পর্বে ইজতেমা করছে। কাজেই নতুন করে ভুল বোঝাবুঝির কিছু নেই। আশা করি কোনো সমস্যা হবে না, উভয় গ্রুপই সুন্দরভাবে শেষ করবে। বিদেশি মেহমানদের জন্য বিগত বছরের তুলনায় এবার আরও সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে গাজীপুরের টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে আসন্ন ৫৬তম বিশ্ব ইজতেমার প্রস্তুতি পর্যালোচনা-সংক্রান্ত ফলোআপ সভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ইজতেমায় মুসল্লিদের নিরাপত্তায় পুলিশ, র‌্যাব, আনসার থাকবে। পুলিশের সাইবার ইউনিট থাকবে। প্রয়োজনে বিজিবি সদস্যদের প্রস্তুত রাখা হবে।

সভায় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান, সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরন, গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনার মোল্যা নজরুল ইমলামসহ বিভিন্ন দপ্তর-সংস্থার প্রতিনিধি ও ইজতেমা আয়োজক কমিটির সদস্যরা অংশ নেন।

টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি শাহ আলম বলেন, বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে প্রস্তুতির কাজ চলছে। অন্যবারের চেয়ে এবার ময়দানে আগত দেশ-বিদেশের মুসল্লিদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অধিক তৎপর থাকবে। এরই মধ্যে প্রায় ৭৫ শতাংশ প্রস্তুতি কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

আগামী ১৩ জানুয়ারি শুরু হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। এতে মাওলানা যোবায়েরপন্থি মুসল্লিরা অংশ নেবেন। চার দিন বিরতির পর ২০ জানুয়ারি শুরু হবে দ্বিতীয় পর্ব। এতে অংশ নেবেন মাওলানা সাদপন্থি মুসল্লিরা।