রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অস্ত্র ঠেকিয়ে ডিউটি ডাক্তারের কাছ থেকে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। রোববার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

জড়িত সন্দেহে আজ সোমবার বেলা আড়াইটার দিকে গোয়ালন্দ পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের মো. আব্দুল গনির (অব. পুলিশ) ছেলে মো. রনি ও ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কুমড়াকান্দি মহল্লার মো. সামছুর ছেলে মো. এমরান হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এদিকে এ ঘটনায় সোমবার সকাল ১০টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসাসেবা বন্ধ রাখা হয়। ফলে বিপাকে পড়েন সেবা নিতে আসা রোগীরা।

জানা যায়, রোববার রাত সাড়ে ১১টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে ডিউটি করছিলেন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার মো. আবুল কালাম আজাদ। হঠাৎ দু’জন দুর্বৃত্ত ওই কক্ষে ঢুকে। মাথায় পিস্তল ও পেটে ধারালো অস্ত্র  ঠেকিয়ে তার কাছে থাকা নগদ অর্থ ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয় এবং তার কক্ষের দরজা বাইরে থেকে আটকে দিয়ে পালিয়ে যায়। চিৎকার শুরু করলে হাসপাতালের অন্যান্য স্টাফরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে।

ভুক্তভোগী মেডিকেল অফিসার আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করছিলাম। রোববার রাত সাড়ে ১১টার পর দু’জন অজ্ঞাত ব্যক্তি আমার কক্ষে ঢুকে। হঠাৎ আমার মাথায় পিস্তল ও পেটে ধারালো অস্ত্র ঠেকিয়ে হাতে ও মাথায় আঘাত করে। মানিব্যাগে থাকা নগদ ছয় হাজার টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে চলে যায়।’


সোমবার বেলা ১১টার দিকে পুলিশ হাসপাতালের সিসিটিভির ফুটেজ পরীক্ষা করতে গিয়ে দেখতে পায়, সিসিটিভির ক্যাবল বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শাহ মোহাম্মদ শরিফ সমকালকে জানান, সিসিটিভির ক্যাবল বিচ্ছিন্ন করে রাখা। এছাড়া আরও কয়েকটি ঘটনায় মনে হচ্ছে- এসব ঘটনায় হাসপাতালের কেউ জড়িত।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার জানান,  জড়িত সন্দেহে দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি।