টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারের এলাসিন এলাকায় সহকারী কমিশনার ভূমি (এসিল্যান্ড) ও ভূমি কর্মকর্তাসহ চারজনের ওপর হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুল হকের ভাই ও ভাতিজার নেতৃত্বে মঙ্গলবার বিকেলে এ হামলা হয়। এ সময় হামলাকারীরা এসিল্যান্ড সুচি রানী সাহাকে ধাওয়া করে এবং তাঁর গাড়িতে ভাঙচুর চালায়। এসিল্যান্ডের সঙ্গে থাকা তিনজনকে পিটিয়ে আহত করে তারা।

আহতরা হলেন, ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা শাহাদত হোসেন খান, নাজির মনির হোসেন ও এসিল্যান্ড অফিসের নাইটগার্ড রাজু মিয়া। এ ঘটনায় বুধবার বিকেলে কর্মকর্তা শাহাদত দেলদুয়ার থানায় পাঁচজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ২০ থেকে ২৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার এলাসিন শামসুল হক সেতুর পশ্চিম পাশে ধলেশ্বরী নদী থেকে প্রভাবশালীরা প্রতিনিয়ত বালু তুলছে। প্রতিদিন অর্ধশত ট্রাক অবৈধ বালু দেলদুয়ারের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করে তারা লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। আওয়ামী লীগের প্রভাব খাটিয়ে ও পুলিশ প্রশাসন ম্যানেজ করে ওই আওয়ামী লীগ নেতার ভাই শাজাহান ও তার ছেলে শাহিন মিয়ার নেতৃত্বে বালু লুট হচ্ছে। এতে রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষতি হলেও প্রশাসন নির্বিকার। ওই সেতু থেকে মাত্র ১০০ গজ দূরে বালু উত্তোলন করায় হুমকির মুখে সেতুটি। এতে বর্ষাকালে মাটি সরে গিয়ে সেতুটি ভেঙে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

বালু ও মাটি উত্তোলনের খবর পেয়ে এসিল্যান্ড সুচি রানী সাহা মঙ্গলবার এলাসিন ঘাট এলাকায় এসে দুটি বালু টানা ট্রাক্টর জব্দ করেন। এ সময় পূর্বপরিকল্পিতভাবে ২০-২৫ জন দুর্বৃত্ত তাঁদের ওপর হামলা করে।

নাইটগার্ড রাজু মিয়া বলেন, ট্রাক্টর আটক করার সঙ্গেই আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল হকের ভাই শাজাহান ও তার ছেলে শাহিনের নেতৃত্বে মনির হোসেন জাহাঙ্গীর, রুবেল, মজনু, জাহিদ, সাজ্জাদ, শামীমসহ ২০ থেকে ২৫ জন হামলা করে। তারা লোহার রড, বাঁশের লাঠিসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে আঘাত করে। এ সময় এসিল্যান্ড ম্যাডামকে কেউ ধাওয়া করলে তিনি গাড়িতে ঢুকে আত্মরক্ষা করেন।

এসিল্যান্ডের গাড়িচালক শরিফ মিয়া জানান, হামলায় গাড়ির গ্লাস ভেঙে গেছে। দেলদুয়ার থানার ওসি নাছির উদ্দিন মৃধা জানান, ভূমি কর্মকর্তা শাহাদাত মামলা করেছেন। এসিল্যান্ড সুচি রানী সাহা বলেন, বালু উত্তোলনে ব্যবহূত দুটি গাড়ি জব্দ করলে দস্যুরা হামলা করে। তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ট্রাক্টর দুটি এখন প্রশাসনের হেফাজতে রয়েছে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারহানা আলী।