শৈশবেই হারিয়েছিল বাবাকে। অভাবের কারণে লেখাপড়া করতে পারেনি। অল্প বয়সে সংসারের ভার তুলে নিয়েছিল কাঁধে। ভ্যান চালিয়ে মাসহ সংসারে অন্য সদস্যদের মুখে ভাত তুলে দিত ১৪ বছরের প্রান্ত রহমান। নিখোঁজ হওয়ার পাঁচ দিন পর শুক্রবার এ কিশোরের মরদেহ পাওয়া গেছে। ভ্যান ছিনিয়ে নিতেই তাকে হত্যা করেছিল দুর্বৃত্তরা।

শরীয়তপুরের জাজিরায় মর্মান্তিক এ ঘটনা ঘটে। প্রান্ত জাজিরা উপজেলার বিলাসপুর ইউনিয়নের মৃত আতিকুর রহমানের ছেলে। পারিবারিক সূত্র জানায়, গত রোববার বাড়ি থেকে ভ্যান নিয়ে কাজীরহাটের উদ্দেশে বের হয়েছিল প্রান্ত। তারপর থেকেই নিখোঁজ। পরদিন জাজিরা থানায় সাধারণ ডায়েরি করে প্রান্তের পরিবার।

পুলিশ সূত্র জানায়, হত্যার ঘটনায় তারা তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় প্রথমে নুরুল ইসলাম নুরু নামের একজনকে আটক করে। তার স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে গতকাল সকাল ১০টায় সেনেরচর আফাজ উদ্দিন বেপারীর ভুট্টাক্ষেত থেকে প্রান্তর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

প্রান্তর মামা এসকান্দার আলী জানান, তাঁর ভাগনে শৈশবে বাবাকে হারিয়ে পড়াশোনা করতে পারেনি। ভ্যান চালিয়েই তাদের সংসার চালাত। ভ্যান নিয়ে কাজীরহাটের উদ্দেশে যাওয়ার পর থেকেই তার খোঁজ মিলছিল না। অবশেষে তার মরদেহ পেয়েছেন।

জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, তাঁরা সাধারণ ডায়েরির তদন্ত করতে গিয়ে প্রথমে নুরুল ইসলাম নুরু নামে একজনকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার এক পর্যায়ে সে প্রান্তকে ভ্যান নেওয়ার জন্য হত্যার কথা স্বীকার করে। পরে তার দেখানো স্থানে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করা হয়।