মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলায় ধলেশ্বরী নদীতে গোসল করতে নেমে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ছয়টায় নদীতে ভাসমান অবস্থায় থাকা শিশু রিমনের (৯) লাশ উদ্ধার করেছে এলাকাবাসী। এর আগে নিখোঁজের সাড়ে তিন ঘণ্টা পর গত রোববার রাত ৯টার দিকে মো. আমির হামজা (৮) নামের আরেক শিশুর লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল।

আমির হামজা চান্দেরচর এলাকার আবদুল আউয়াল মিয়ার ছেলে। মো. রিমন একই এলাকার মো. বাবুল মিয়ার ছেলে। তারা গত রোববার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে উপজেলার বালুচর ইউনিয়নের চাঁন্দেরচর এলাকায় ধলেশ্বরী নদীতে ডুবে যায়।  

স্থানীয় বাসিন্দা ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ওই বিকেলে চাঁন্দেরচর এলাকার লেকু মার্কেট–সংলগ্ন কামাল উদ্দিন মাদবরের বাড়ির ঘাট দিয়ে ধলেশ্বরী নদীতে গোসল করতে নামে আমির হামজা ও রিমন। গোসলের একপর্যায় তারা নদীর গভীরে চলে যায়। সে সময় পানির স্রোতে দুজন তলিয়ে যায়। 

বালুচর ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আলেক চান বলেন, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক। এলাকায় বিষাদের ছায়া নেমে এসেছে।

সিরাজদীখান থানার ওসি একে এম মিজানুল হক জানান, ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা আমির হামজার লাশ উদ্ধার করলেও নিখোঁজ ছিল রিমন। আজ সকালে রিমনের লাশ নদীতে ভাসমান অবস্থায় পাওয়া যায়। 

সিরাজদীখান ফায়ার সার্ভিসের সাব-অফিসার মো. রেজাউল করিম বলেন, আমাদের অভিযান অব্যাহত ছিল। নদীতে স্রোত আর কচুরিপানার কারণে উদ্ধারকাজ কিছুটা বাধাগ্রস্ত হয়। ঘটনার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এক শিশুর লাশ আমাদের ডুবুরি দল উদ্ধার করে। আজ সকালে আরেক শিশুর লাশ ভেসে ওঠে।