ঢাকা বুধবার, ২২ মে ২০২৪

‘তোমরা আমার মানিকরে বুকে ফিরিয়ে দাও’

‘তোমরা আমার মানিকরে বুকে ফিরিয়ে দাও’

মুজাহিদ

দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১১ মে ২০২৪ | ১৯:৩০

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে ৫০০ টাকার জন্য পাঁচ বছরের শিশু মুজাহিদকে নদীতে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে শামিম হোসেনের (১৫) বিরুদ্ধে। এরপর থেকে মুজাহিদ এখনও নিখোঁজ রয়েছে। শিশুটি এখনও বেঁচে আছেন, নাকি মারা গেছেন তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। এদিকে একমাত্র ছেলের শোকে আর্তনাদ করছেন মুজাহিদের মা। বিলাপ করে বলছেন, ‘তোমরা আমার মানিকরে বুকে ফিরিয়ে দাও’। 

শুক্রবার দুপুরে উপজেলার সানন্দবাড়ী এলাকার পাটাধোয়া পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। পরে শনিবার বিষয়টি জানাজানি হলে জড়িত থাকার সন্দেহে শামিম হোসেনকে দেওয়ানগঞ্জ রেল স্টেশন আটক করে পুলিশ। পুলিশ জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মুজাহিদকে নদীতে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়ার কথা স্বীকার করেছে শামিম। সে পাটাধোয়া পাড়ার রফিকুল ইসলামের ছেলে।

মুজাহিদের পরিবারের অভিযোগ, শুক্রবার দুপুরে মুজাহিদ বাড়ির কাউকে না জানিয়ে গোপনে ৫০০ টাকার নোট নিয়ে বাড়ির অদূরের একটি দোকানে যায় বিস্কুট কিনতে। সে সময় শামিম তাকে দেখে পিছু নেয়। এক পর্যায়ে শামিম মুজাহিদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে প্রলোভন দেখিয়ে বাড়ির নিকটবর্তী নদীর পাড়ে নিয়ে যায়। মুজাহিদ কথাটা তার মাকে বলার ভয় দেখালে শামিম মুজাহিদকে নদীতে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। তখন থেকে নিখোঁজ রয়েছে মুজাহিদ। 

অন্যদিকে ভয়ে শামিমও আত্মগোপন করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ এলাকায় জনমুখে শামিম ও মুজাহিদের নিখোঁজের সংবাদ ছড়িয়ে পড়ে। মুজাহিদকে না পাওয়ার বিষয়ে তার স্বজনরা শামিমকে সন্দেহ করে পুলিশে জানালে পুলিশ শুক্রবার রাত ১২টার দিকে দেওয়ানগঞ্জ রেল স্টেশন থেকে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদের পর শনিবার শামিমকে ঘটনাস্থলে নেওয়া হলে সে মুজাহিদকে নদীতে ধাক্কা দেওয়ার কথা স্বীকার করে।

মুজাহিদের মা সেলিনা পারভীন বলেন, ‘মুজাহিদ আমাদের একমাত্র সন্তান। সে খুব বুদ্ধিমান ছেলে। বয়সের অনুপাতে তার বুদ্ধির বিকাশ অধিক। সে কাউকে না জানিয়ে ঘর থেকে পাঁচশত টাকার নোট নিয়ে দোকানে যায় খাবার কিছু কিনতে। সেই ছেলে আর বাড়িতে ফিরেনি। তোমরা আমার বুকের মানিকরে আমার বুকে ফিরাইয়া দাও।’

মুজাহিদের বাবা বাবুল আক্তার বলেন, ‘শুক্রবার আমরা জানতাম মুজাহিদ নিখোঁজ রয়েছে। পরে শামিমের প্রতি আমাদের সন্দেহ হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত শনিবার আমাদের সেই সন্দেহই সত্যি হল। মুজাহিদের লাশ এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি। আমি এর উপযুক্ত বিচার চাই।’

দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানার ওসি বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন, শামিমকে শুক্রবার রাত ১২টার দিকে দেওয়ানগঞ্জ রেল স্টেশন থেকে আটক করা হয়েছে। শনিবার ঘটনাস্থলে নিয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে সে মুজাহিদকে নদীতে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়ার কথা স্বীকার করে। ছোট ছেলে, সাঁতার জানেনা। ধারণা করা হচ্ছে- মুজাহিদের মৃত্যু হয়েছে।  এ বিষয়ে থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

আরও পড়ুন

×