ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আটক মাদ্রাসা শিক্ষক

ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আটক মাদ্রাসা শিক্ষক

কুমিল্লা সংবাদদাতা

প্রকাশ: ১৪ অক্টোবর ২০২০ | ০৮:২৯ | আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০২০ | ০৮:৫১

কুমিল্লায় কওমি মাদ্রাসায় ১২ বছর বয়সী এক শিশুছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ওই মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষককে আটক করা হয়েছে। 

আটক মো. ইউসুফ সোহাগ জেলার চান্দিনা সদরের দারুল ইহসান তাহফিজুল কোরআন কাওমি মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক। বুধবার বিকেলে তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে স্থানীয়রা।

অভিযুক্ত ওই শিক্ষক জেলার দেবিদ্বার উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের সহিদুল ইসলামের ছেলে। তিনি চান্দিনাস্থ কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ জামে মসজিদের ইমাম।

ভুক্তভোগী ছাত্রী জানায়, মাদ্রাসায় পড়া অবস্থায় এক মাস আগে ইউসুফ হুজুর তার সঙ্গে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক করে। বিষয়টি বাড়িতে জানাতে চাইলে তিনি ভয়-ভীতি দেখান। পরে সুযোগ পেলেই খারাপ কাজ করতেন তিনি।

মেয়েটি জানায়, মঙ্গলবার বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে হুজুর তাকে ঢাকায় নিয়ে যান।

মানবাধিকার কর্মী ও কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা লিটন সরকার বলেন, ওই শিক্ষক এ পর্যন্ত চারটি বিয়ে করেছেন। এখনও তার দুই স্ত্রী রয়েছে। তার বিরুদ্ধে মাদ্রাসায় শিশু ছাত্রীদের বিভিন্নভাবে জিম্মি করে ধর্ষণের আরও অভিযোগ রয়েছে।

লিটন সরকার বলেন, মেয়েটির বাড়ি আমার গ্রামে। মেয়েটির বাবা মঙ্গলবার রাতে আমাকে বিষয়টি জানালে আমি দেবিদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ওসিকে জানিয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করি। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।

চান্দিনা থানার ওসি শামসউদ্দীন মোহাম্মদ ইলিয়াছ বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষক মো. ইউসুফ সোহাগকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন

×