ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

ইউরোপে গেল খুলনার সবজি, খুশি কৃষকরা

ইউরোপে গেল খুলনার সবজি, খুশি কৃষকরা

ছবি: সমকাল

খুলনা ব্যুরো

প্রকাশ: ২১ মে ২০২১ | ০৯:৫১

বাণিজ্যিকভাবে এই প্রথম খুলনা থেকে ইতালি ও ইংল্যান্ডে সবজি রপ্তানি শুরু হয়েছে। শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার ভিলেজ সুপারমার্কেট থেকে এসব সবজি পাঠানো হয়। এর মধ্যে আছে পেঁপে, পটোল, কচুরলতি ও কাঁচকলা।

প্রথম চালানে এক টন সবজি রপ্তানি করা হয়েছে। এনএইচবি করপোরেশন ও আরআর এন্টারপ্রাইজ নামের দুটি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান এসব সবজি রপ্তানি করছে। এর মধ্যে এনএইচবি করপোরেশন ইতালি এবং আরআর এন্টারপ্রাইজ ইংল্যান্ডে সবজি রপ্তানি করবে। সকালে সবজিগুলো প্রক্রিয়াজাত করার পর তা পিকআপে করে পাঠানো হয় ঢাকায়। সেখান থেকেই উড়াল দেবে ইউরোপে।

সবজি রপ্তানিতে সার্বিক সহযোগিতা করছে ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। আর আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা দিচ্ছে 'সলিডারিডাড নেটওয়ার্ক এশিয়া' নামের একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা। ওই সংস্থার 'সফল' নামের একটি প্রকল্পের আওতায় কৃষকদের নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দেওয়া হয়। মূলত 'সফল' প্রকল্পের আওতাভুক্ত কৃষকদের কাছ থেকেই সবজিগুলো নেওয়া হয়েছে।

এর আগে যশোর থেকে সবজি ও সাতক্ষীরা থেকে আম ইউরোপে রপ্তানি শুরু হয়। এবারই প্রথম খুলনা থেকে উৎপাদিত সবজি ইউরোপে গেল। সংশ্নিষ্টরা বলছেন, রপ্তানি বাজার খুলে যাওয়ায় আম ও সবজির প্রায় দ্বিগুণ দাম পাচ্ছেন কৃষকরা। এতদিন খুলনার কৃষকরা তা থেকে বঞ্চিত ছিলেন। নিজেদের ঘাম ঝরানো সবজি বিদেশে যাচ্ছে শুনে খুশি কৃষকরাও। বেশি দাম পাওয়ার সম্ভাবনার কথাও বলছেন তারা।

শুক্রবার সকাল থেকেই ভিলেজ সুপারমার্কেটে ছিল অন্যরকম পরিবেশ। কেউ পটোল বাছাই করছেন, কেউ ধুয়ে পরিস্কার করছেন কচুরলতি। কেউবা কাঁচকলা প্যাকেটজাত করছেন। সবার মধ্যেই খুশির আমেজ। যারা কাজ করছেন তাদের গায়ে সবুজ গাউন, হাতে গ্লাভস পরা ছিল। খুব যত্ন করে ও সতর্কতার সঙ্গে কাজগুলো করছিলেন তারা।

রপ্তানির জন্য সেখানে তিন মণ পটোল নিয়ে এসেছিলেন ডুমুরিয়ার আটলিয়া ইউনিয়নের বরাতিয়া গ্রামের তাপস সরকার। তিনি বলেন, সম্পূর্ণ বিষমুক্ত ও নিরাপদভাবেই সবজি উৎপাদন করা হয়েছে। বরাতিয়া গ্রামে থাকা ক্ষেত থেকে পেঁপে সংগ্রহ করে সেখানেই প্যাকেটজাত করছিলেন নিখিল নন্দী। তিনি বলেন, রপ্তানির জন্য উপযোগী করেই সবজি উৎপাদন করা হয়েছে।

সলিডারিডাড নেটওয়ার্ক এশিয়া সংস্থার ফুডস অ্যান্ড ভেজিটেবলস বিভাগের ম্যানেজার নাজমুন নাহার বলেন, ২০১৩ সাল থেকেই খুলনা ও এর আশপাশের বিভিন্ন জেলার কৃষকদের নিরাপদ সবজি উৎপাদন নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। এতদিন এসব সবজি ঢাকাসহ বড় বড় সুপারশপে পাঠানো হতো। এ বছর ১২০ টন সবজি রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছাদ্দেক হোসেন বলেন, এটি সফল হলে খুলনার কৃষকদের জন্য নতুন সম্ভাবনার দ্বার খুলে যাবে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠান: সবজি রপ্তানি কার্যক্রমের উদ্বোধন উপলক্ষে গতকাল সকাল ১১টার দিকে ডুমুরিয়ার ভিলেজ সুপারমার্কেটে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে অনলাইনে প্রধান অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন। অতিথি ছিলেন খুলনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক হাফিজুর রহমান, ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোছাদ্দেক হোসেন ও খুলনা কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক এস এম মাহবুব আলম। সভাপতিত্ব করেন ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল ওয়াদুদ।

এ সময় বক্তারা বলেন, খুলনা থেকে উৎপাদিত চিংড়ি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হয়। এখন এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে সবজি। সরকারের সহযোগিতা পেলে খুলনা থেকেই সবজি রপ্তানিতে বিপ্লব ঘটতে পারে।

আরও পড়ুন

×