ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

একে একে পাঁচ সন্তানের জন্ম, বাঁচানো গেল না কাউকে

একে একে পাঁচ সন্তানের জন্ম, বাঁচানো গেল না কাউকে

রামেকে চিকিৎসাধীন চাঁপাইনবাবগঞ্জের দেবীনগরের গৃহবধূ জেসমিন খাতুনের পাঁচ সন্তানের কাউকে বাঁচানো যায়নি। ছবি-সমকাল

রাজশাহী ব্যুরো

প্রকাশ: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ০৮:৫২ | আপডেট: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ০৮:৫২

গর্ভধারণের পর মাত্র সাড়ে চার মাস পর চাঁপাইনবাবগঞ্জের দেবীনগরের গৃহবধূ জেসমিন খাতুন (২৪)   একে একে পাঁচ সন্তানের জন্ম দিলেও বাঁচানো যায়নি কাউকে।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল-রামেকেরপরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী সমকালকে বলেন, ‘বৃহস্পতিবার বিকালে রামেক হাসপাতালে জেসমিন খাতুন একে একে পাঁচ সন্তানের জন্ম দেন। তবে সব বাচ্চাই ছিল প্রি-ম্যাচিউর বেবি। তাই একজনও বাঁচেনি।’ 

জেসমিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার দেবীনগর ইউনিয়নের কাবাতুল্লাহ মোল্লাটল্লা গ্রামের নির্মাণ শ্রমিক শহিদুল ইসলাম শহিদের স্ত্রী।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বাড়িতেই সাড়ে চার মাস বয়সী একটি বাচ্চার জন্ম দেন জেসমিন খাতুন। বাচ্চাটি সেখানেই মারা যায়। এরপর তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। 

সেখানে ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে  আরও চারটি বাচ্চার জন্ম দেন জেসমিন তাদের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের একটি ইনকিউবেটরে রাখা হয়। 

হাসপাতালে জেসমিনের মা ফুলসন বেগম জানান, এবারই প্রথম গর্ভধারণ করেছিলো তার মেয়ে। বাড়িতে প্রথমে তার একটি মেয়ে সন্তান হয়। সেটি বাড়িতেই মারা গেছে। এরপর হাসপাতালে নেওয়ার পর চারটি ছেলে সন্তান হয়েছে। সেগুলোর একটিকেও বাঁচাতে পারেনি চিকিৎসকরা।

২৪ নম্বর ওয়ার্ডে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাফিদ মোস্তফা বলেন, ‘মাত্র সাড়ে চার মাস বয়স হয়েছিল বাচ্চাগুলোর। তাদের কোনোভাবেই বাঁচানো সম্ভব ছিলো না। সন্ধ্যায় সবগুলো বাচ্চা মারা গেছে। 

বাচ্চাগুলোর ওজন মাত্র ৩০০ থেকে সাড়ে ৩০০ গ্রাম ছিল। তাই তারা মারা গেছে।’

আরও পড়ুন

×