ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

পড়া না পারায় মাদ্রাসা ছাত্রকে পিটিয়ে হাসপাতালে

পড়া না পারায় মাদ্রাসা ছাত্রকে পিটিয়ে হাসপাতালে

হাসপাতালে ভর্তি আহত জিসান। ছবি: সমকাল

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি

প্রকাশ: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০:২৯ | আপডেট: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০:২৯

লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের কালু হাজী সড়কে অবস্থিত তানজিমুল উম্মাহ্ হিফজুল মাদ্রাসায় নুরানী বিভাগের শিক্ষার্থী মো: আরাফাত হোসেন জিসান (৭) কে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করেছে মাদ্রাসার শিক্ষক মো ইমাম উদ্দিন। ঘটনার পর থেকে নুরানী বিভাগের শিক্ষক পলাতক রয়েছেন। 

মাদ্রাসা ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকেলে আরাফাত তানজিমুল উম্মাহ্ হিফজুল মাদ্রাসার আবাসিক এলাকা থেকে নুরানী বিভাগের অধ্যায়নের জন্য যায়। এসময় পড়া না পারায় তাকে স্কেল দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করেন। পরে অন্য ছাত্ররা বিষয়টি ওই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদেরকে জানালে শিক্ষকরা এসে আহত জিসানকে চিকিৎসার জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। এদিকে অভিভাবকদের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে যান ওই শিক্ষক।

এদিকে তানজিমুল উম্মাহ্ হিফজুল মাদ্রাসায় একাধিক অভিভাবক সাংবাকিদের জানান, ওই শিক্ষক ইতিপূর্বেও কয়েকজন শিক্ষার্থীকে মারধর করে আহত করেছে। তার বিচার না হওয়ায় তিনি অঘটন ঘটিয়ে যাচ্ছেন। 

আহত শিক্ষার্থীর পিতা মো: মোহন মিয়া বলেন, ছেলেকে বেধড়ক মারধরের বিষয়টি তাকে কাঁদিয়েছে। প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে মাসে আট হাজার টাকা দিয়ে পড়াই শিক্ষকের মারধরের জন্য নয়। আমি এর বিচার চাই। 

মাদ্রাসা ভাইস প্রিন্সিপাল মো: ছলিমুল্লাহ জানান, তার মাদ্রাসায় নুরানী বিভাগের শিক্ষক মো ইমাম উদ্দিন পাঠদানের সময় আবাসিক শিক্ষার্থীকে মারধরের বিষয়টি মোটেও ঠিক হয়নি। এতে মাদ্রাসার সুনাম ক্ষুণ্ন হয়। এ ঘটনায় জড়িত ওই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া আহত শিক্ষার্থী মো: আরাফাত হোসেন জিসানের  চিকিৎসার ব্যায়ভার প্রতিষ্ঠান থেকে দেয়া হবে। 

সদর হাসপাতলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা: আরমানুর রহমান জানান, রাতেই মাদ্রাসার শিক্ষকরা আহত অবস্থায় মো: আরাফাত হোসেন জিসানকে (৭) সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তবে তার শরীরে বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহৃ রয়েছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। সেরে উঠতে তিন চারদিন সময় লাগবে।

আরও পড়ুন

×