করোনা মোকাবিলায় সাফল্যের জন্য সারা বিশ্বের নজর কেড়েছে নিউজিল্যান্ড। দেশটিতে লকডাউন উঠে গিয়ে ফের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা শুরু হয়েছে। কিন্তু ১০২ দিন পর নিউজিল্যান্ডে নতুন করে করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গেল।

প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডেন বলেছেন, এটা একটা স্থানীয় সংক্রমণ। অকল্যান্ডের একটি পরিবারের চার সদস্যের মধ্যে করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার দেশটির সবচেয়ে বড় এই শহরটিতে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। শহরের অধিবাসীদের নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। খবর এনডিটিভির।

মঙ্গলবার টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে জেসিন্ডা আর্ডেন বলেছেন, '১০২ দিন ‌আমরা ফের করোনার কবলে পড়েছি। এটা কাটিয়ে উঠতে আমাদের আবার কড়াকড়ি অবস্থানে যেতে হবে।'

তিনি সবাইকে পরিকল্পনামাফিক জীবন যাপনে প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।
 
মঙ্গলবার পর্যন্ত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিউজিল্যান্ডকে করোনা মোকাবিলায় আদর্শ দেশ হিসেবে গণ্য করে আসছিল। মনে করা হচ্ছিল, নিউজিল্যান্ড সমষ্টিগত সংক্রমণ দমনে বিরাট সাফল্যের পরিচয় দিয়েছে।
 
২ কোটি ২০ লাখ লোকসংখ্যার দেশ নিউজিল্যান্ড। দেশটিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা মোটে ২২ জন। ১ মে থেকে নিউজিল্যান্ডে করোনা সংক্রমণের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। ফলে দেশটিতে প্রায় স্বাভাবিক জীবনযাত্রা শুরু হয়েছিল। সামাজিক মেলামেশায় বিধিনিষেধ ছিল না। অবারিত হয়ে উঠেছে খেলাধূলা ও সাস্কৃতিক কর্মকাণ্ডও। তবে স্বাস্থ্য বিভাগ লোকজনকে সাবধানে চলা ফেরা করতে সতর্ক করে দিয়েছিল। করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় পর্যাযের জন্যও সতর্ক থাকতে বলা হয়েছিল তাদের।
 
বুধবার থেকে অকল্যান্ডে তিনদিনের জন্য লকডাউন জারি করা হয়েছে। চালু করা হয়েছে সামাজিক মেলা মেশায় কিছু বিধিনিষেধও।