বুয়েটের হলে হলে আতঙ্ক

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর এই বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

বুধবার সরেজমিনে বুয়েটে গিয়ে দেখা যায়, আবরার হত্যার বিচার দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চললেও তাদের মধ্যে আছে অজানা শঙ্কা। নাম প্রকাশে ভীত বুয়েটের একাধিক ছাত্র জানান, দীর্ঘদিন ধরে বুয়েটের বিভিন্ন হলে র‌্যাগিং বা শিবিরকর্মী সন্দেহে অনেকেই মারধরের শিকার হয়ে আসছে।

শেরেবাংলাসহ বিভিন্ন হলে গিয়ে দেখা যায়, ভেতরে টানানো রয়েছে ব্যানার। তাতে লেখা, 'র‌্যাগিং ইজ ক্রাইম'। কেউ র‌্যাগিংয়ের শিকার হলে কার কার সঙ্গে যোগাযোগ করলে প্রতিকার পাওয়া যাবে, এমন বেশ কিছু মোবাইল নম্বরও ওই ব্যানারে রয়েছে। তাতে প্রভোস্টের নম্বরও দেওয়া আছে।

তবে হলের সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানান, অনেকে র‌্যাগিংয়ের শিকার হলেও 'বড় ভাইদের' ভয়ে তাদের নাম প্রকাশ করেন না। আবার যারা র‌্যাগিংয়ের সঙ্গে জড়িত, তাদের অনেকে র‌্যাগিং প্রতিরোধ কমিটিতেও রয়েছেন।

শেরেবাংলা হলের নিরাপত্তারক্ষী নুরুল ইসলাম সমকালকে বলেন, আবরারের ঘটনায় বুধবার থেকে সংবাদকর্মীসহ কোনো বহিরাগতকে হলে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

এদিকে রিমান্ডে থাকা আসামিরা পুলিশকে জানায়, বুয়েটে সিনিয়র-জুনিয়র ব্যাচের মধ্যে কমান্ড কন্ট্রোল শৃঙ্খলা বাহিনীর চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। সিনিয়রদের নির্দেশনা অমান্যকে তারা 'গুনাহর' মতো বিবেচনা করে।

রিমান্ডে থাকা সকাল জানান, আবরার তার নটর ডেম কলেজের ছোট ভাই। তার মৃত্যুর দায় নিয়ে তিনি আর বাঁচতে চান না। তাই ফাঁসি বা ক্রসফায়ার চান সকাল। তবে অনিক বলেছেন, আবরারের ঘটনায় জড়ানো ছিল তার জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল। একবারের জন্য এই ভুল শোধরানোর সুযোগ চান তিনি।