বাংলাদেশ ব্যাংকের মুনাফা ব্যাপক কমেছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে বিনিময়হারজনিত লাভ বাদে কেন্দ্রীয় ব্যাংক তিন হাজার ১৭২ কোটি টাকার পরিচালন মুনাফা করেছে। আগের অর্থবছর যা ছিল ৫ হাজার ৭৫৯ কোটি টাকা। এতে করে আগের অর্থবছরের চেয়ে মুনাফা কমেছে ২ হাজার ৫৮৭ কোটি টাকা বা ৪৪ দশমিক ৯২ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংকের বার্ষিক প্রতিবেদনে এমন তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মূল উদ্দেশ্য মুনাফা অর্জন নয়। তবে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক হিসেবে অর্থ ব্যবস্থাপনার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সংরক্ষণ করে। আবার প্রয়োজনের আলোকে কখনও ডলার বিক্রয় বা ক্রয় করে। এ ছাড়া মুদ্রানীতি ব্যবস্থাপনার অংশ হিসেবে রেপো, স্পেশাল রেপো বা তারল্য সহায়তার মাধ্যমে ব্যাংকগুলোকে ধার দেয়। অনেক সময় রিভার্স রেপোর মাধ্যমে বাজার থেকে টাকা তুলে নেয়। এসব ব্যবস্থাপনা করতে গিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুনাফা করে।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, বৈদেশিক মুদ্রা বিনিয়োগের বিপরীতে বাংলাদেশ ব্যাংকের আয় ব্যাপক কমেছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে বৈদেশিক মুদ্রার বিপরীতে সুদ আয় হয়েছে ২ হাজার ৫৪৫ কোটি টাকা। আগের অর্থবছরে যার পরিমাণ ছিল ৪ হাজার ৯৬৬ কোটি টাকা। এ ক্ষেত্রে আয় কমেছে ২ হাজার ৩৮৭ কোটি টাকা বা ৪৮ দশমিক ৪০ শতাংশ। করোনার কারণে বিশ্ববাজারে সুদহার ব্যাপক কমে যাওয়া যার কারণ।

সব মিলিয়ে ২০২০-২১ অর্থবছরে বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময়জনিত লাভসহ বাংলাদেশ ব্যাংক আয় করেছে ৮ হাজার ৬৩৬ কোটি টাকা। আর ব্যয় হয়েছে ২ হাজার ৮৫৮ কোটি টাকা। আগের অর্থবছর আয় হয় ৯ হাজার ৩৫ কোটি টাকা। ব্যয় হয়েছিল ২ হাজার ৮৪৯ কোটি টাকা। গত অর্থবছর টাকার বিপরীতে ডলারের দর বেড়েছে।