ঢাকা রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

বইমেলায় নারীবান্ধব উদ্যোগ

বইমেলায় নারীবান্ধব উদ্যোগ

বইমেলায় কেন্দ্রবিন্দু'র স্টল

সালমান সাঁকো

প্রকাশ: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ১৮:০০ | আপডেট: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ০৭:৩৭

বাঙালির প্রাণের উৎসব অমর একুশে বইমেলা। লেখক-পাঠক-প্রকাশকের মিলনমেলাও বলা হয় একে। নতুন বইয়ের উদ্বোধন, লেখকদের অটোগ্রাফ, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা, শিশুদের উচ্ছ্বাস- সব মিলিয়ে এক জমজমাট দৃশ্যের দেখা মেলে বইমেলায়। করোনা মহামারির পর এবার বইমেলা শুরু হয় ১ ফেব্রুয়ারি থেকে। তাই এবারের মেলার আমেজও ভিন্ন। তবে এবারের বইমেলায় বিশেষ নজর কেড়েছে ব্যতিক্রমী একটি উদ্যোগ। মুক্তমঞ্চের পূর্বপাশে ৫৭৩ নম্বর স্টল। প্রকাশনীর নাম 'কেন্দ্রবিন্দু'।

তাদের স্টলের সামনে যেতেই দেখা গেল দুটো ব্যানার। একটিতে লেখা 'বইমেলায় কেন্দ্রবিন্দুর স্টলে ফ্রি স্যানিটারি প্যাডস থাকবে সকল বোনের জন্য। আপনি বই কিনুন বা না কিনুন, ইমার্জেন্সিতে স্টলে চাইলেই হবে।' অন্যটিতে লেখা 'প্রিয় বোন, ইমার্জেন্সি হতেই পারে। প্রয়োজনে, সংকোচ না করে যোগাযোগ করুন আমাদের স্টলে।' সেখানে যোগাযোগের জন্য তাদের ফোন নম্বরও দেওয়া আছে। মেলায় ঢুকে ওই নম্বরে যোগাযোগ করলে অথবা সরাসরি স্টলে গেলেই বিনামূল্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন পাওয়া যাবে।

প্রত্যেক মেয়েকেই ঋতুস্রাব চক্রের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। নারী জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ এটি। এই বিশেষ সময়েও যেন মেলার আমেজ মিলিয়ে না যায়, নারীরা যেন বিব্রতকর অবস্থার মুখে না পড়েন, সে জন্যই কেন্দ্রবিন্দুর এ উদ্যোগ। বইমেলায় এমন উদ্যোগ এবারই প্রথম। নারীরা যেন নিঃসংকোচে এগিয়ে আসতে পারেন সে জন্য তাঁরা সর্বদা সচেতন আছেন বলে জানান কেন্দ্রবিন্দুর প্রতিষ্ঠাতা ওয়াহিদ তুষার।

তিনি বলেন, 'পিরিয়ড বিষয়টা আমাদের সমাজে এখনও একটা ট্যাবু। কিন্তু বিষয়টি খুবই স্বাভাবিক ও প্রাকৃতিক। যেহেতু এটা নির্দিষ্ট দিনেই হিসাব করে হয় না, তাই অনেকেরই প্রিপারেশন থাকে না। আরেকটা বড় সংকট হচ্ছে মেলার মাঠের ১ কিলোমিটারের মধ্যে কোনো ফার্মেসি নেই। তাই কোনো নারী চাইলেও তখন কোনো সলিউশন পান না। তাই আমরা এ বিষয়টি নিয়ে কাজ করছি। যাতে করে আমাদের বোনেরা ইমার্জেন্সিতে বিপাকে না পড়েন।'

কেমন সাড়া পাচ্ছেন- এ প্রশ্নের উত্তরে ওয়াহিদ তুষার বলেন, 'মেলার প্রথম দিন বিষয়টি সবারই বেশ নজর কেড়েছে। যেহেতু প্রচারণা সেভাবে ছিল না, তাই অনেকেই জানতেন না। তবে মেলা ঘুরে বেড়ানোর পর থেকে দর্শনার্থীরা এ নিয়ে সামনেই আলোচনা করেছেন, উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন। মেলার দ্বিতীয় দিন থেকে আমরা বুঝতে পেরেছি আমাদের এ উদ্যোগ নারীদের জন্য কতটা সহযোগিতাপূর্ণ ছিল। কারণ আমাদের কাছ থেকে অনেকেই স্যানিটারি ন্যাপকিন নিয়েছেন। তাদের সাহায্য করতে পেরেছি বলে আমরা পুরো কেন্দ্রবিন্দু টিম আনন্দিত।'

আরও পড়ুন

×