ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন আগামীকাল বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১০টায় ফরিদপুর সরকারি রাজেন্দ্র কলেজ মাঠে এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ভার্চুয়ালি  সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন। 

শুরুতে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের সময় জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করবেন আমন্ত্রিত কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। সম্মেলন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহা, পরিচালনা করবেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন।

প্রয়াত নেতৃবৃন্দের নামে শোক প্রস্তাব উত্থাপন করবেন জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক অনিমেষ রায়। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেবেন অনুষ্ঠানের সভাপতি। এরপর শুরু হবে বক্তৃতা পর্ব। নয়টি উপজেলার সভাপতি অথবা সাধারণ সম্পাদক বক্তব্য রাখবেন। এরপর জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেবেন। সবশেষে আমন্ত্রিত কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখবেন।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্যাহ এবং প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক (ঢাকা বিভাগ) মির্জা আজম।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, কর্নেল (অব) ফারুক খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান ও শাহাজাহান খান।

আরও বক্তব্য রাখবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল প্রমুখ। 

জেলা আওয়ামী লীগ সূত্র জানায়, নৌকা আকৃতি সদৃশ একটি মঞ্চ নির্মাণ করা হয়েছে। এ মঞ্চের দৈর্ঘ্য ৪৮ ফুট এবং প্রস্থ ২৭ ফুট। সম্মেলনস্থলে এক লাখ পাঁচ হাজার বর্গ ফুটের ওই মাঠে ১৫ হাজার লোকের বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। নেতৃবৃন্দের বসার জন্য থাকছে এক হাজার সোফা। অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া নেতাকর্মীদের দুপুরের খাবারের জন্য ২০ হাজার প্যাকেট খাবার সরবরাহ করা হবে। সম্মেলন বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত ‘কলরেডি’ মাইক সিস্টেম আনা হয়েছে।

সম্মেলনের শেষে জেলা আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হবে বলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ধারণা করছেন। ২০১৬ সালের ২২ মার্চ জেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। তখন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়েছিল। পরে ২০১৭ সালের ১৯ নভেম্বর ৭৫ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করা হয়।