ছয় দিন বন্ধ থাকার পর কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের (কুমেক) মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের ল্যাবে করোনাভাইরাস পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। 

সোমবার সকাল থেকে ওই ল্যাবে কার্যক্রম শুরু হয়। দুপুরে বিষয়টি জানান কুমেকের অধ্যক্ষ মোস্তফা কামাল আজাদ।

গত ৩০ নভেম্বর ওই ল্যাবে করোনা ছড়িয়ে পড়ে। ওইদিন বিকেলে করোনা পরীক্ষার সময় বিষয়টি টের পান সেখানে কর্মরতরা। পরে গত ১ ডিসেম্বর থেকে করোনা পরীক্ষা সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। গত ছয় দিন ধরে পরীক্ষা বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েন উপসর্গ থাকা লোকজন। তবে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েন বিদেশগামী ব্যক্তিরা।

কুমেক সূত্র জানায়, গত ২৯ এপ্রিল থেকে কুমেকের ল্যাবে করোনা শনাক্ত কার্যক্রম শুরু হয়। প্রথমে একটি মেশিনে পরীক্ষা শুরু হলেও পরে আরও একটি মেশিন স্থাপন করা হয়। ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর ল্যাবকে জীবাণুমুক্ত করতে প্রথমে স্থানীয়ভাবে কাজ শুরু করে কুমেক কর্তৃপক্ষ। তবে এতে ব্যর্থ হয় তারা। সবশেষ ঢাকা থেকে বিশেষজ্ঞ দল এসে রোববার দিনভর চেষ্টা চালিয়ে ল্যাবকে জীবাণুমুক্ত করে। সোমবার কুমেক অধ্যক্ষ মোস্তফা কামাল আজাদ বলেন, এখানে প্রতিদিন সাড়ে ৩০০ থেকে ৪০০ নমুনা পরীক্ষা করা যাবে। আশা করছি, এখন মানুষের ভোগান্তি দূর হবে।

জেলা সিভিল সার্জন মো. নিয়াতুজ্জামান জানান, তারা সোমবার সংগ্রহ করা নমুনাগুলোও ঢাকা ও নোয়াখালী পাঠাবেন। কুমেকে এদিন তারা পরীক্ষামূলক কাজ করেছেন। সবকিছু ঠিক থাকলে আজ থেকে আগের মতো নমুনা দেওয়া হবে।


মন্তব্য করুন