যুক্তরাষ্ট্রে বিতর্ক কমিশনের সিদ্ধান্ত

চূড়ান্ত বিতর্কে প্রয়োজনে মাইক বন্ধ করে দেয়ার ব্যবস্থা

প্রকাশ: ২০ অক্টোবর ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের এবারের প্রেসিডেন্সিয়াল বিতর্কের প্রথম দফায় বেশ হৈচৈ হয় অংশগ্রহণকারী দুই প্রার্থীর মধ্যে। একের কথার মধ্যে আরেকজনের বাধা দেয়া, একজন আরেকজনকে রুক্ষ গলায় চুপ করতে বলাসহ নানা ধরনের অসহিষ্ণু ভাবভঙ্গি বিতর্কের গাম্ভীর্যকে ব্যাহত করেছে। বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের বক্তব্যের সময় বারবার বাধার সৃষ্টি করেছেন। তাই আগামী বৃহস্পতিবারের চূড়ান্ত বিতর্ক চলার সময় প্রয়োজনে মাইক্রোফোন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আয়োজকরা।

বিতর্ক কমিশন বলেছে, ন্যাশভাইলের ওই বিতর্ক চলার সময় যাতে ২৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত প্রথম বিতর্কের পুনরাবৃত্তি না ঘটে, সে জন্য এই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। খবর আল জাজিরার।

কমিশনের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা এই ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিতে পেরে খুশি। যাদের জন্য এই বিতর্ক, তারা যেন এটা মনে রাখেন যে, তারা যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের স্বার্থে নিজেদের চিন্তাভাবনা নিয়ে কথা বলছেন। জনগণ তাদের মধ্যে বিশৃঙ্খলা দেখতে চায় না।’

এনবিসি নিউজ জানায়, চলতি সপ্তাহে ৯০ মিনিটের এই চূড়ান্ত বিতর্কে প্রত্যেক প্রার্থীকে একেকবার ১৫ মিনিট করে সময় দেয়া হবে। এর মধ্যে প্রথম দুই মিনিট তিনি বিনা বাধায় কথা বলতে পারবেন।

বৃহস্পতিবারের বিতর্কের প্রস্তাবিত বিষয়গুলো হচ্ছে- পরিবার, জলবায়ু পরিবর্তন ও গোত্র বা বর্ণসম্পর্কীয়। তবে ট্রাম্পশিবির বলেছে, বিতর্কে বৈদেশিক নীতিটিও থাকা উচিত।

বাইডেনের প্রচারকরা বলেছে, ট্রাম্পের করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আলোচনা হওয়া উচিত। যুক্তরাষ্ট্রের সিংহভাগ মানুষ এ সম্পর্কে জানতে আগ্রহী। ৩ নভেম্বর প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচন। মাত্র দু’সপ্তাহ বাকি। ডেমোক্রেটিক প্রাথী জো বাইডেন প্রায় প্রতিটি রাজ্যে ট্রাম্পের চেয়ে জরিপে এগিয়ে থাকলেও কয়েকটি রাজ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রাথমিকভাবে ব্যালটের মাধ্যমে এরই মধ্যে তিন কোটিরও বেশি লোক তাদের ভোট দিয়ে ফেলেছেন।